রাজশাহী সংবাদ

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপালের অকেজো সিটিস্ক্যান মেশিন: দালালে জিম্মি রোগীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক:
মাত্র দুই বছরের মধ্যেই অকেজো হয়ে গেছে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের একমাত্র সিটিস্ক্যান মেশিনটি। ৯ কোটি টাকা ব্যয় করে আধুনিক এই মেশিনটি বসানো হয় ২০১৭ সালে। কিন্তু ২০১৯ সালও পার করতে পারলো না মেশিনটি। তার আগেই একেবারে অকেজো ঘোষণা করে এখন নতুন মেশিন বসানোর জন্য পরিকল্পনা করা হচ্ছে।

তবে গত চার মাস ধরে সিটিস্ক্যান মেশনটি
বিকল হয়ে পড়ে থাকায় রোগীরা বাধ্য হচ্ছেন হাসপাতালের বাইরে গিয়ে সিটিস্ক্যান করাতে।
এদিকে হাসপাতালের সিটিস্ক্যান মেশিনটি অকেজো হওয়ায়র সুযোগ কাজে লাগিয়ে এক শ্রেনীর দালালরা রোগীদের প্রায় জিম্মি করে নিয়ে যাচ্ছেন নিজেদের পছন্দমতো ডায়াগনোস্টিক সেন্টারে। এরপর সেখানে হাতিয়ে নিচ্ছেন অতিরিক্ত অর্থ। এতে রোগীদের যেমন ভোগান্তি বেড়েছে, তেমনি অতিরিক্ত অর্থও খরচ হচ্ছে।

রামেক হাসপাতাল সূত্র মতে, খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রামেক হাসপাতালের অত্যাধুনিক সিটিস্ক্যান মেশিনটি প্রায় ৯ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০১৭ সালে স্থাপন করা হয় রেডিওলোজি বিভাগে। এরপর থেকেই মাঝে মাঝেই নষ্ট হতো মেশিনটি। আবার মাঝে মাঝে সচল থাকতো। এভাবেই অনিয়মিত সার্ভিস দিয়ে আসছিল। কিন্তু এবার একেবারেই অকেজো হয়ে গেছে। আর সচল করার কোনো উপায় নাই। গত ১২ ডিসেম্বর স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের একটি প্রতিনিধি দল এসে রামেক হাসপাতালের সিটিস্ক্যান মেশিনটিকে একেবারেই অকেজো ঘোষণা করে দিয়ে গেছেন। সেই সঙ্গে নতুন মেশিন সংযোজনের প্রক্রিয়া গ্রহণের কথা দিয়ে গেছেন। এখন নতুন মেশিনের অপেক্ষায় কাটছে।

এদিকে হাসপাতালে সিটিস্ক্যান করতে আসা সোহেলি খাতুন বলেন, ‘আমি শিবগঞ্জ থেকে এসেছি মাথার সমস্যা নিয়ে। ডাক্তার সিটিস্ক্যান করাতে বলেন। এর পর বর্হিবিবাগ থেকে বের হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই কয়েকজন লোক আমার নিকট থেকে ডাক্তারের দেওয়া প্রেসক্রিপশনটি নিয়ে নিল। তারা জানালো, হাসপাতালের নস্ট মেশিনে কাজ হবে না বাইরে গিয়ে করাতে হবে সিটিস্ক্যান। কম টাকায় বাইরে করানো যাবে।

এরপর বাইরের একট ডায়াগনোস্টিক সেন্টার নিয়ে গিয়ে সিটিস্ক্যান করিয়ে ৪ হাজার টাকা নিল তারা। আবার সঙ্গে করে নিয়ে যাওয়ার জন্য আরো ২০০ টাকা কমিশন দিতে হলো।’
আরেক ভূক্তভোগী সিমা দাস বলেন, ‘মেডিক্যাল থেকে বের হতেই কয়েকজন লোক এসে বললো, তাদের ভালোা মেশিন আছে। সেখানে নিয়ে গিয়ে ৫ হাজার টাকা আদায় করে তারা। কিন্তু হাসপাতালে করলে দুই হাজার টাকাতেই হয়ে যেত।’
হাসপাতালে আসা মনির হোসেন জানান, তিনি দিনমজুরের কাজ করেন। প্রতিদিন যা আয় হয় তা দিয়েই সংসার চলে। হাসপাতালে সিটিস্ক্যান করাতে খরচ হয় দুই হাজার টাকা। কিন্তু বাইরে করাতে গেলে গুনতে হচ্ছে চার থেকে পাঁচ হাজার টাকা। এতো টাকা এখন কোথায় পাবো?
রামেক হাসপাতাল সূত্রে যানা যায়, প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত রেডিওলোজি বিভাগে সিটিস্ক্যান করা হতো। তবে মাঝেমধ্যেই যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে মেশিনটি বন্ধ হয়ে থাকত। কিন্তু গত চার মাস ধরে এটি একেবারেই নষ্ট হয়ে গেছে। আর সচল করা হয়নি।

রোগীর অভিভাবক পারভিন বানু বলেন, ‘আমার স্বামীর একটা সড়ক দুর্ঘটনায় আঘাত পেয়েছে। এখন সিটিস্ক্যান করা লাগবে। কিন্ত মেডিক্যালে এই সুযোগ আমরা পাচ্ছি না। এতো বড় মেডিক্যালে কিভাবে মেশিন নষ্ট থাকে? তাহলে আমরা বাইরে গিয়ে করাতে এতো টাকা কোথায় পাবো?’

জানতে চাইলে হাসপাতালের উপপরিচালক সাইদুল ফেরদৌস মো: খায়রুল আলম বলেন, ‘আমাদের সিটিস্ক্যান মেশিনটি একেবারেই নষ্ট হয়ে গেছে। এখন নতুন মেশিন বসানোর পরিকল্পনা চলছে। আশা করি দ্রুতই এটি স্থাপন করা হবে। আগের মেশিনটি নষ্ট হওয়ায় রোগীদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এবং বাইরে অতিরিক্ত অর্থও গুনতে হচ্ছে। নতুন মেশিন বসলে এই সমস্যা অনেকটাই সমাধান হবে।’

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button