রাজশাহী সংবাদ

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীকে মারধর; ৩দফা দাবিতে উত্তাল ক্যাম্পাস !

রাবি প্রতিনিধি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) সোহরাব (২২) নামে এক শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে মাথা ফাঁটিয়ে আহত করার ঘটনায় বিচারের দাবিতে আন্দোলন নেমেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। শনিবার বেলা ১১টায় ঢাকা -রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করে আন্দোলন করে শিক্ষার্থীরা।

এসময় শিক্ষার্থীরা সোহরাব ওপর হামলা ঘটনায় বিচারের দাবি জানিয়ে বলেন, সকল শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চ শিক্ষা নিয়ে বের হয়ে এরা দেশের হয়ে ভূমিকা রাখতে পারছেনা। কিন্তু কিভাবে রাখবে। প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন যখন দুর্নীতিতে জর্জরিত। যেখানে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর চলে ক্যাডারদের অমানুষিক নির্যাতন। সোহরাব কি করেছিলো? ওর মত সাধারণ ছেলেদের ওপর ক্যাম্পাসের সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে মেধা বিকাশে বাঁধা হয়ে দাড়ায়।

এসময় তারা তিনটি দাবি উত্থাপন করেন, অনতিবিলম্বে ঘটনায় জড়িতদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত সহ ছাত্রত্ব বাতিল করা, হলের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় প্রভোস্টের পদত্যাগ, চিকিৎসার সকল খরচ প্রশাসনকে বহন করতে হবে।
এসময় ‘আমার ভাইকে মাররো কেন প্রশাসন জবাব চাই’ সহ নানা স্লোগান দিতে থাকে বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা। অবরোধে ফলে এময় ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কে যানজটের সৃষ্টি হয়।

উল্লেখ্য, ফাইন্যান্স বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সোহরাবকে শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে বারোটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ শামসুজ্জোহা হলে ছাত্রলীগের দুই কর্মী আসিফ লাক ও হুমায়ুন কবির নাহিদ ডেকে তৃতীয় ব্লকের ২৫৪ নাম্বার কক্ষে নিয়ে যান। সেখানে সোহরাবকে নানা রকম কথা জিজ্ঞাসাবাদ করে ওই ছাত্রলীগ কর্মীরা। এক পর্যায়ে বাকবিতন্ডা শুরু হলে তারা দুজন সোহরাবের মাথা ও হাতে পিটাতে থাকে।

এক পর্যায়ে সোহরাব রক্তাক্ত হলে তারা মারধর বন্ধ করে। মোটরসাইকেলে করে রাবি মেডিকেল সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে এ্যাম্বুল্যান্সে করে সোহরাবের বন্ধুরা গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। এতে সোহরাবের বাম হাতের কনুইয়ের ওপর ও নিচে দুই জায়গায় ভেঙে গেছে। ডাক্তার জানিয়েছে মাথার তিন জায়গায় সেলাই দেয়া হয়েছে । তার মাথা থেকে প্রচন্ড পরিমাণে রক্ত ক্ষরণ হয়েছে। বর্তমানে আশংকা জনক অবস্থায় আছে সোহরাব।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button