রাজশাহী সংবাদ

রাজশাহী-কলকাতা রেল রুট দূরত্ব ও সময় জটিলতা নিয়ে ভাবছে কর্তৃপক্ষ

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী-কলকাতা ট্রেন সার্ভিস শুরু হতে যাচ্ছে দ্রুতই। বিষয়টি নিয়ে দুই দেশের সরকারের উচ্চপর্যায়ে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকও হয়েছে। বৈঠকে ভারতের পক্ষ থেকে একটি রুটও প্রস্তাব করা হয়েছে। এখন ট্রেন চালুর প্রক্রিয়া ‘রুট সিলেকশন’ পর্যায়ে রয়েছে। তবে প্রথমেই ‘রুট সিলেকশন’ নিয়ে জটিলতা দেখা দিয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্রে জানা গেছে।

সূত্র বলছে, দু’টি ট্রেন বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে চলাচল করলেও রাজশাহী-কলকাতার ট্রেনটির রুট হবে ভিন্ন। প্রস্তাবিত রুটে যাতায়াতের ক্ষেত্রে অন্য দু’টি আন্তঃদেশীয় ট্রেনের তুলনায় অধিক দূরত্বের। তাই যাতায়াতে সময়ও লাগবে। রুট ম্যাপিং করার পর দেখা গেছে প্রস্তাবিত রুটে মালদহ হয়ে ট্রেন চলাচলে সময় বেশি লাগবে প্রায় সাড়ে সাত ঘণ্টা। ফলে ট্রেনের ‘রুট সিলেকশন’ নিয়ে জটিলতা দেখা দিয়েছে।

রাজশাহী পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, প্রস্তাবিত রুটে রাজশাহী-কলকাতা ট্রেনটি যাবে ভারতের মালদহের সিঙ্গাবাদ সীমান্ত দিয়ে।

ট্রেনটি চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহনপুর সীমান্ত দিয়ে ভারতের সিঙ্গাবাদ, মালদহ, ফারাক্কা, কাটোয়া, খাগড়াঘাট হয়ে কলকাতার হাওড়ায় রেলস্টেশনে পৌঁছাবে। এ রুটে কলকাতা যেতে ৪২৫ কিলোমিটার পথ দূরত্ব অতিক্রম করতে হবে। সময় লাগবে প্রায় ১১ ঘণ্টা।
অথচ বর্তমানে রাজশাহীর যাত্রীদের গেদে সীমান্ত দিয়ে ২১৫ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করে কলকাতা যেতে সময় লাগে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা। ফলে নতুন রুটে দ্বিগুণ দূরত্বের কারণে রাজশাহী-কলকাতা প্রস্তাবিত রুটে সময়ও লাগবে দ্বিগুণ। তাই ট্রেনটি অদূর ভবিষ্যতে চালু হলে সময় বেশি লাগার কারণে রাজশাহীর যাত্রীরা এ রুটে চলাচল করবেন কিনা এই নিয়ে সন্দিহান রেলওয়ের উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তারা।
এদিকে রাজশাহী-কলকাতা রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা চালুর ব্যাপারে সর্বশেষ গত বছরের ৩০ অক্টোবর রাজধানীর রেলভবনে রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন ও ভারতীয় হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হয়। এতে ভারতের পক্ষ থেকে মালদহ হয়ে রাজশাহী-কলকাতা রেল যোগাযোগের রুট প্রস্তার রাখা হয়।

ওই বৈঠকে জানানো হয়, এখন ট্রেন দুইটি দিয়ে বাংলাদেশ-ভারত রেলপথ যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু রয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা থেকে ভারতের কলকাতা রুটে চলাচল করছে ‘মৈত্রী এক্সপ্রেস’, আর খুলনা-কলকাতা রুটে চলছে ‘বন্ধন এক্সপ্রেস’।

এখন রাজশাহী-কলকাতা রুটে আরও একটি ট্রেন সার্ভিস চালু হলে, এটি দেশের উত্তরবঙ্গের সঙ্গে চিকিৎসা, ভ্রমণ ও বাণিজ্যের ক্ষেত্রে নতুন সম্ভাবনার দুয়ার খুলবে। আমদানি-রপ্তানির জন্য উন্মোচিত হবে নতুন দ্বার।

ওই বৈঠকে ভারত সরকারের পক্ষ থেকে রাজশাহী থেকে মালদহ হয়ে কলকাতা পর্যন্ত একটি আন্তঃদেশীয় ট্রেনটি চালু করার বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করা হয়। উভয়পক্ষের আলোচনা শেষে সিদ্ধান্ত হয়, বাংলাদেশ এবং ভারতের যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপ এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে। এছাড়া যমুনা নদীর পশ্চিমপাড়ে ভারতের পক্ষ থেকে প্রস্তাবিত একটি আইসিডি (ইনল্যান্ড কনটেইনার ডিপো) নির্মাণের বিষয়েও আলোচনা হয়।

এর আওতায় সিরাজগঞ্জ বাজারে ছোট পরিসরে আইসিডি নির্মাণের সিদ্ধান্ত হয়।
ভারত থেকে ২০টি লোকোমোটিভ সরবরাহ বিষয়ে বলা হয়, কারিগরি দল পরিদর্শন করে বিভিন্ন শর্তাবলী ঠিক করে ইঞ্জিনগুলো দ্রুত আনার বিষয়ে উদ্যোগ নেবে।
এই ট্রেন সার্ভিস চালু হলে উত্তরের শেষ সীমান্ত জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহনপুর রেলস্টেশন চত্বরে ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস সুবিধা চালু করতে হবে। বর্তমানে রহনপুরে কাস্টমস কার্যালয় থাকলেও তাদের নিজস্ব ভবন নেই। রহনপুর রেলবন্দর চত্বরে ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস স্টেশন নির্মাণ করার জন্য রেলওয়ের যথেষ্ট জায়গা রয়েছে।

সে জায়গাতে এ কার্যালয়গুলো খোলার সম্ভাবনাও যাচাই করা হচ্ছে। তবে প্রস্তাবিত রুটে যোগাযোগ স্থাপনে দূরত্ব ও সময় নিয়ে ভাবনায় পড়েছে রেল কর্তৃপক্ষ।

এ ব্যাপারে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাব্যবস্থাপক অসীম কুমার তালুকদার সাংবাদিকদের জানান, প্রস্তাবিত রুটে রাজশাহী-কলকাতা রেল যোগাযোগে বর্তমানে চলাচলকারী অন্য দু’টি ট্রেনের তুলনায় সময় বেশি লাগবে। এ রুটে আড়াই ঘণ্টায় রাজশাহী থেকে রহনপুর, সেখান থেকে ১৫-২০ মিনিটের মধ্যে মালদহ পৌঁছানো যাবে। পরে মালদহ থেকে কলকাতা যেতে আরও প্রায় ৩২৩ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করতে হবে। এতে সময় লাগবে প্রায় ৮ ঘণ্টা। তাই প্রস্তাবিত রুটে ৪২৫ কিলোমিটার যাত্রা করে রাজশাহী থেকে কলকাতা পৌঁছাতে সময় লাগবে প্রায় ১১ ঘণ্টা।

বর্তমানে দু’দেশের মধ্যে চলাচলকারী দুইটি ট্রেনে ২১৫ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করে কলকাতায় পৌঁছাতে সময় লাগছে পাঁচ ঘণ্টা। ফলে রাজশাহী-কলকাতা প্রস্তাবিত রুটে অতিরিক্ত সময় লাগবে আরও ছয় ঘণ্টা। ফলে এ অঞ্চলের লোকজন দীর্ঘ দূরত্বের পথ পাড়ি দিয়ে ভ্রমণ করবেন কিনা তারা সন্দিহান। তাই রুট পুনঃনির্ধারণে ভারতের সঙ্গে আরও আলোচনা হবে বলেও উল্লেখ করেন এ রেলওয়ে কর্মকর্তা।

এজন্য রাজশাহী-কলকাতা রেল যোগাযোগ চালুর বিষয়টি এখনও ‘রুট সিলেকশন’ পর্যায়ে আছে বলে জানিয়েছেন পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) মিহির কান্তি গুহ। তিনি বলেন, রুট সিলেকশন চূড়ান্তের পর কাস্টমস, ইমিগ্রেশন, র‌্যাক নির্ধারণ ও সময়সূচিসহ অন্যান্য বিষয়গুলো পর্যায়ক্রমে চূড়ান্ত করা হবে।

প্রস্তাবিত রুটের জটিলতা সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, মালদহ হয়ে ট্রেন চলাচল করলে অন্তত সাড়ে ছয় ঘণ্টা সময় বেশি লাগবে।

বর্তমানে রাজশাহী থেকে দর্শনা গিয়ে সেখান গিয়ে গেদে সীমান্ত দিয়ে পাঁচ ঘণ্টায় কলকাতা পৌঁছে যাওয়া যায়। কিন্তু প্রস্তাবিত রুটে দূরত্ব ও সময় দুটোই বেশি। ফলে এ অঞ্চলের যাত্রীরা দীর্ঘপথ যাত্রা করবেন কিনা তা নিয়ে অনিশ্চিয়তা থেকেই যায়। যদিও এই রুট দিয়ে এখন মালবাহী ট্রেন চলাচল করছে। কিন্তু যাত্রীবাহী ট্রেন ও মালবাহী ট্রেনের মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে।

একটি রেলওয়ের নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানিয়েছে, বিষয়টি এরই মধ্যে সরকারের উচ্চপর্যায়ে অবহিত করা হয়েছে। ‘রুট সিলেকশন’ নিয়ে রেলমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। এই রুটের ম্যাপও রেলমন্ত্রীর কাছে প্রদর্শন করা হয়েছে। এ বিষয়ে রেলমন্ত্রী ভারতীয় হাইকমিশনারসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে দ্রুত আলোচনা হবে। এ ব্যাপারে দ্রুতই ইতিবাচক সিদ্ধান্ত আসবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button