বাগমারারাজশাহী সংবাদ

রাজশাহীর বাগমারায় লুৎফর বাহিনীর প্রধান লুৎফর গ্রেপ্তার

বাগমারা প্রতিনিধি : রাজশাহীর বাগমারার ব্যাপক আলোচিত লুৎফর বাহিনীর প্রধান বাসুপাড়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আ’লীগ নেতা লুৎফর রহমান (৪৮) ও তার ভাই রফিকুল ইসলামকে (৪৫) গ্রেফতার করা হয়েছে। বুধবার গভীর রাতে বাগমারা থানার পুলিশ ও ডিবি পুলিশ যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে উপজেলার সাইপাড়া গ্রাম থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। বৃহস্পতিবার তাদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে গত মঙ্গলবার ভোর রাতে একই ইউনিয়নের জাবের বাহিনীর প্রধান জাবেরসহ ৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়। সম্প্রতি বাগমারার বহুল আলোচিত দুই বাহিনীর দুই শীর্ষ গডফাদার গ্রেফতার হওয়ায় এলাকায় সাধারণ মানুষের মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে। তাদের গ্রেফতারের খবরে বিভিন্ন এলাকায় মিষ্টি বিতরণ করা হয়েছে বলেও খবর পাওয়া গেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বিল দখল চাঁদাবাজি ও এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সম্প্রতি উপজেলার বাসুপাড়া ইউনিয়নের দুই প্রভাবশালী গডফাদার মুখোমুখি অবস্থান নেয়। তাদের একজন হলেন বাসুপাড়া ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি লুৎফর রহমান। আরেক জন হলেন লুৎফর রহমানের হাতেই তৈরি তারই এক সময়ের আস্থাভাজন শীর্ষ্য সন্ত্রাসী জাবের আলী। এই দুই গডফাদার বাসুপাড়া ইউনিয়নে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে তাদরে শক্তি বৃদ্ধির জন্য সম্প্রতি গড়ে তুলেছেন তাদের নিজস্ব বাহিনী। এর মধ্যে লুৎফর রহমানের নেতৃত্বে অর্ধশত ক্যাডার বাহিনী নিয়ে গড়ে তোলা হয় লুৎফর বাহিনী। আর জাবের আলীর নেতৃত্বে কয়েকটি গ্রামের মধ্যম বয়সী ছেলেদের নিয়ে গঠন করা হয় ঠ্যোঙ্গরা বানিহী।

সম্প্রতি এই দুই বাহিনীর পাল্টাপাল্টি হামলা মারপিট ও সংঘর্ষে অন্তত: অর্ধশত নারী-পুরুষ আহত ও চারজন পুঙ্গত্ববরণ করেছেন। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে বাগামারা থানা ও রাজশাহীর আদালতে একাধিক পাল্টাপাল্টি মামলাও হয়েছে। মামলা দায়ের পরপরই দুই বাহিনীর দুই গডফাদার ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে। তারা তাদের নিজস্ব বাহিনী নিয়ে পাল্টাপাল্টি হামলা মারপিট ও সংঘর্ষে লিপ্ত হন।

এলাকার লোকজন অভিযোগ করেন গত ১৯ ডিসেম্বর লুৎফর রহমানের হাতুড়ি বাহিনীর লোকজন হামলা চালিয়ে জাবের বাহিনীর মোতালেব (২৫) নামে এক ভ্যান চালক ও সাইপাড়া গ্রামের রবিউল ইসলাম (৪০) নামে এক কৃষকের পিটিয়ে হাত-পা ভেঙ্গে দেয়। বর্তমানে তারা আজীবনের মতো পুঙ্গ হয়ে গেছেন।

এছাড়া লুৎফর বাহিনীর (হাতুড়ি বাহিনীর) মারপিটে এ পর্যন্ত সাইপাড়া গ্রামের আসাদুল ইসলাম (৩০) মোজাফ্ফর হোসেন (৪২) আব্দুল আজিজ (৪০) সাফিকুল ইসলাম (৩৫) সাদ্দাম হোসেন (৩৪) ও ইউসুব আলীসহ (৩৮) এলাকার প্রায় অর্ধশত মানুষ আহত হয়েছেন। অপরদিকে গত ৩ ডিসেম্বর জাবের বাহিনীর হামলার শিকার হন বীরকয়া গ্রামের মোবারক হোসেন (৪৫)। জাবের বাহিনীর লোকজন পিটিয়ে তার হাত ও পা ভেঙ্গে দেয়। বর্তমানে তিনিও পুঙ্গত্ব জীবন যাপন করছেন।এই দুই বাহিনীর তান্ডবের ঘটনায় বিভিন্ন স্থানীয় ও জাতীয় প্রিন্ট মিডিয়ায় একাধিক সংবাদ প্রকাশের পরে নড়েচড়ে বসে আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা।

মঙ্গলবার ভোর রাতে জাবের বাহিনীর প্রধান জাবেরসহ ৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর বুধবার গভীর রাতে ডিবি ও থানার পুলিশ যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে হাতুড়ি বাহিনীর প্রধান লুৎফর রহমান (৪৮) ও তার ভাই রফিকুল ইসলামকে (৪৫) গ্রেফতার করে। গতকাল বৃহস্পতিবার তাদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

বাগমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতাউর রহমান বলেন এলাকায় আধিপ্ত নিয়ে লুৎফর রহমানের হাতুড়ি বাহিনী ও জাবেরের ঠ্যোঙ্গরা বাহিনীর বেপরোয়া হয়ে উঠেছিলো। ওই দুই বাহিনীর অত্যাচারে এলাকার সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে পড়েন। তাদের অত্যাচার থেকে রক্ষা পেতে এলাকার লোকজন ওই দুই বাহিনীর বিরুদ্ধে হামলা মারপিট ও চাঁদাবাজীর অভিযোগে থানা ও আদালতে একাধিক মামলা দায়ের করেন।

এরপর ওই দুই বাহিনীর প্রধান জাবের ও লুৎফরসহ দুই বাহিনীর মোট ৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের গ্রেফতারের ফলে এলাকায় সাধারণ মানুষের মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে বলেও ওসি মন্তব্য করেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button