পুঠিয়ারাজশাহী সংবাদ

রাজশাহীর পুঠিয়ায় নিরাপত্তাহীনতায় নিহত শ্রমিক নেতা নুরুলের পরিবার

পুঠিয়া প্রতিনিধি : রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলায় খুন হওয়া শ্রমিক নেতা নুরুল ইসলামের পরিবার এখন নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। এলাকার কয়েকজন রাজনৈতিক নেতা এবং শ্রমিক নেতা তাদের হুমকি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ নিহতের মেয়ে নিগার সুলতানার।

গত মঙ্গলবার রাতে ১৩ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন তিনি। নিরাপত্তা চেয়ে থানায় আরেকটি আবেদনও করেছেন তিনি।

গত ১১ জুন পুঠিয়ার কাঁঠালবাড়িয়া এলাকার একটি ইটভাটা থেকে শ্রমিক নেতা নুরুল ইসলামের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওইদিনই নিগার সুলতানা পুঠিয়া থানায় আটজনকে আসামি করে একটি এজাহার দেন।

ওই এজাহারে বলা হয়, মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রতিদ্বন্দ্বিরা এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন। কিন্তু ওই এজাহার গ্রহণ করেননি থানার তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাকিল উদ্দিন আহমেদ। তিনি এজাহার করেন কোনো আসামির নাম ছাড়াই।

হাইকোর্টের নির্দেশে বিচার বিভাগীয় তদন্তে এর সত্যতা পাওয়া গেছে। রাজশাহীর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদি হাসান তালুকদার এই তদন্ত করেন। তার তদন্ত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে গত ১ ডিসেম্বর হাইকোর্ট নিগার সুলতানার এজাহার গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন। আর মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব দিয়েছেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই)। এছাড়া দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সমন্বিত জেলা কার্যালয়কে ওসি সাকিলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলেছেন হাইকোর্ট। সে জন্য চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটকে নথিপত্র সরবরাহ করতে বলা হয়েছে।

এদিকে হত্যাকাণ্ডের কয়েকদিন পরই পুলিশ নিহত শ্রমিক নেতা নুরুল ইসলামের প্রতিবেশী এক কিশোরকে গ্রেপ্তার করে বলেছিল, যৌনাচারে বাধ্য করায় সে এই হত্যাকাণ্ড ঘটায়। আদালতে সে স্বীকারোক্তিও দিয়েছে। তবে হাইকোর্ট ওই কিশোরকে জামিন দিয়েছেন। নিগার সুলতানা শুরু থেকেই দাবি করে আসছেন, ঘটনা ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতেই ওই কিশোরকে দিয়ে ‘জজ মিয়া নাটক’ সাজাচ্ছে পুলিশ।

নিগার সুলতানা জানান, তার বাবার খুনিদের বিচার দাবিতে মঙ্গলবার সকালে তার কয়েকজন আত্মীয়-স্বজন পুঠিয়া উপজেলা সদরে পোস্টার সাঁটাচ্ছিলেন। তখন যারা এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত তারা এবং তাদের সহযোগীরা পোস্টার ছিঁড়ে ফেলেন। পরে আবার পোস্টার সাঁটানো হলে পরিণতি ভালো হবে না বলেও তারা হুমকি দেন। এ ঘটনায় তিনি রাতে থানায় মামলা করেছেন।

মামলার আসামিরা হলেন- জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আহসানুল হক মাসুদ, উপজেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান পটল, কোষাধ্যক্ষ কেএম শাহীন, বাস স্টপেজের টিকিট মাস্টার আবদুল আলিম, আওয়ামী লীগ নেতা গোলাম ফারুক, যুবলীগ কর্মী টাইফ, শামিম, রকি, মতিন, জাহাঙ্গীর, স্মরণ, মিঠু এবং তার ভাই রিপন। নিগারের যে এজাহার ওসি গ্রহণ করেননি সেটাই মাসুদ, গোলাম, শাহীন, মিঠু, মতিন এবং পটলের নাম ছিল।

নিগার সুলতানা বলেন, আসামিদের হুমকিতে কেউ এখন আর পোস্টার লাগাতে যেতে চাইছে না। সে জন্য আমিই পোস্টার লাগানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কিন্তু সে জন্য আমিও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। তাই পোস্টার লাগানোর সময় যেন আমার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয় সে জন্য থানায় লিখিত আবেদন করা হয়েছে। আর হুমকি দেয়া এবং পোস্টার ছিঁড়ে ফেলার ঘটনায় আলাদা মামলা করা হয়েছে।

এদিকে হত্যা মামলায় বাদীর এজাহার না নিয়ে মনগড়া এজাহার দায়েরের ঘটনায় হাইকোর্টের আদেশের আগেই ওসি সাকিলকে পুঠিয়া থানা থেকে প্রত্যাহার করা হয়। পরে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। বর্তমানে তার বিরুদ্ধে পুলিশের বিভাগীয় তদন্ত চলছে। আর তার বিরুদ্ধে অনুসন্ধান শুরু করার প্রস্তুতি নিচ্ছে দুদক। এ জন্য কাগজপত্র চেয়ে বিভিন্ন দপ্তরে চিঠি দেয়া হয়েছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button