রাজশাহী সংবাদ

রাজশাহীতে বেড়েই চলেছে সাংবাদিক নির্যাতন নতুন আইন চান সাংবাদিকবৃন্দ

স্টাফ রিপোর্টার: অপ্রতিরোধ্য অগ্রগতিতে এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশ । আর এই অগ্রযাত্রাকে এগিয়ে নিতে নির্ভীক ভুমিকা পালন করে আসছে সাংবাদিকরা। প্রতিটি উন্নয়নের পেছনে রয়েছে সাংবাদিকদের ভুমিকা। একজন সংবাদকর্মীকে বলা হয় জাতির বিবেক। নিজের জীবন বাজি রেখে সংবাদ সংগ্রহ করেন এই জাতির বিবেক। আর এই জাতির বিবেক যখন সমাজের কিছু দূর্নীতিবাজ সরকারী কর্মকর্তা রাতারাতি কোটিপতি ও বিলাসবহুল জীবন যাপনের জন্য সরকারী সম্পদ লুটপাটের প্রতিযোগীতায় ব্যাস্ত, তখন রাস্ট্রীয় সম্পদ রক্ষার জন্য সেই সব অসাধু কর্মকর্তাদের মুখোশ উম্মচনে তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে সাংবাদিকের হতে হচ্ছে  শারীরিক ও মানষিকভাবে লাঞ্ছিত, এমন কি চাঁদাবাজি ও মানহানি মামলা দিয়ে হয়রানি ও সত্যের কলমকে থামানোর অপচেস্টা করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে  একটি অসাধু চক্র।
এরই ধারাবাহিকতায় চলতি মাসের ১২ তারিখে রেলওয়ে পশ্চিম রাজশাহীর রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর চীফ কমান্ড্যান্ট ফাত্তা ভুঁইয়ার দূর্নীতির সংগ্রহ করতে গেলে অনলাইন নিউজ পোটালের প্রকাশক ও বাংলাদেশ তৃনমূল সাংবাদিক সোসাইটির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক রেজাউলকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত হতে হয় এমন কি হত্যার চেষ্টা ও করে। রেজাউল জানান, তিনি ঘটনার পরপরই নগরীর চন্দ্রিমা থানায় লিখত অভিযোগ করেছেন।
এ ছাড়া চীফ কমান্ড্যান্ট এর নিকট সিপাহী হাবিব, সিপাহী মাহাবুন ও হাবিলদার নূর আলম,হাবিলদার আশরাফুলের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ ও করেন সাংবাদিক । তিনি জানান,পশ্চিম রেলের নিরাপত্তা বাহিনীর চীফ কমান্ড্যান্ট ফাত্তা ভুঁইয়ার অনিয়ম দূর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার তথ্যের বিষয়ে কথা বলতে গেলে তাকে প্রায় ঘন্ঠাব্যাপি বাইরে বসিয়ে রাখেন। বিষয়টি তিনি মহাব্যবস্থাপক মিহিরকান্তি গুহকে অবহিত করলে তিনি সাক্ষাৎদেন । তার বিরুদ্ধে প্রাপ্ত তথ্য গুলো ছিলো রাজশাহী পশ্চিম রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর চীফ কমান্ডেন্ট ফাত্তাহ ভুইয়ার উপর পাহাড় পরিমান অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ । অভিযোগ ও ঘুষ বানিজ্যের তথ্য নিতে গিয়ে সাংবাদিককেও লাঞ্চিত করেন তার অধিনস্থ সিভিল টিম । অভিযোগ আছে পশ্চিম রেলের আর এন বি শাখায় চীফ কমান্ডেন্ট হিসাবে ৩১ শে অক্টবর ২০১৭ সালে যোগদানের পর থেকে ফাত্তাহ ভুইয়া নানা অনিয়ম দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েন । বর্তমানে তার ঢাকায় দুটি বিশাল বহুল বাড়ির তদন্তও করছে দুদক । গত কিছুদিন আগে পদোন্নতির নামে সাড়ে চার কোটি টাকা লোপাট করেন তিনি ।
এর মধ্যে প্রহরী থেকে নায়েক পদে ৪৫ জন কে পদোন্নতি দেয়া হয় প্রতিজনের নিকট ৫ লাখ টাকা করে নিয়ে  । নায়েক থেকে হাবিলদার পদে পদোন্নতি দিয়ে ১০ জনের নিকট থেকে নেয় ৬ লাখ টাকা করে । হাবিলদার থেকে এ এস আই পদে পদোন্নতি দেয় ৫ জনকে প্রতিজনের নিকট থেকে নেয় ৭ লাখ করে । এ এস আই থেকে এস আই পদে পদোন্নতি দেয় ৫ জনকে যাদের নিকট থেকে নেয় ১০ লাখ করে। অভিযোগ রয়েছে, রেলওয়ে পশ্চিমের বিভিন্ন স্টেশন সংলগ্ন ফুটপাত থেকে প্রায় ৩ হাজার দোকান থেকে প্রতি দোকানে ১ হাজার করে তিন লাখ টাকা প্রতিমাসে মাসোহারা নেন । ঠিকাদারী কাজের অনিয়মসহ টিএ বিল ও ভ্রমণ ভাতায় বরাদ্দ টাকাও আত্নসাতের অভিযোগ আছে চীফ ফাত্তাহ ভুইয়ার বিরুদ্ধে । দীঘদিন থেকে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতি করে ঢাকায় দুটি বিশাল বাড়ি বানিয়েছে চীফ, যা বর্তমানে দুদক তদন্ত করছেন । কমান্ড্যান্টের পেটোয়া বাহিনী ও অবৈধ অর্থ উত্তোলন কারিরা হচ্ছেন, হাবিলদার আশরাফুল, সিপাহী হাবিব, এসআই আসাদ, হাবিলদার নুরে আলম, হাবিব, পিএ -শরীফ, নায়েক কালাম, সহ নাম অজানা অনেকেই । এই পেটোয়া বাহিনীর কোন ডিউটি না দিয়ে সিভিলে অফিসে বসিয়ে রাখেন চীফ নিজে ।
উল্লেখিত বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি সব তথ্যই সত্য নয় বলে জানান। এসময় রেলওয়ে রাজশাহী শ্রমিকলীগের ৪ জন সিনিয়র নেতা উপস্থিত ছিলেন।তাদের সমনেই তিনি সংবাদ প্রচার না করার জন্য অনুরোধ করেন। আলাপ শেষে বের হতেই বরান্দায় শিবিল পোশাকে অপেক্ষামান সিপাহী হাবিব, হাবিলদার নূরে আলম, হাবিলদার আশরাফুল তার পথরোধ করে তার স্যারের নিউজ করলে ভলো হবেনা বলে হুমকী দেন। নীচে নেমে আসতেই উল্লখিত তিন জনসহ ৮/১০ জন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য তাকে ঘিরেধরে তাকেসহ সাংবাদিকদের গালিগালাজ করতে থাকে। এক পর্যায়ে সিপাহী হাবিব চিৎকার করে বলতে থাকে স্যার বলেছে সালা সাংববদিককে গুলিকর, বলেই সিপাহী হাবিব, সিপাহী মাহাবুব, হাবিলদার নূরে আলম এলো পাথারী কিল, ঘুষি মারতে থাকে সাংবাদিককে।
এ ঘটনার পরপরই ১২ ফেব্রুয়ারী বেলা ১১ টায় চন্দ্রীমা থানায় ৪ জনকে আসামী করে অভিযোগ দায়ের করেন সংবাদিক রেজাউল। অন্যদিকে ১৩ ফেব্রুয়ারী রাজশাহীর তাহের পুরে আওয়ামিলীগের ত্রী-বার্ষিকী সম্মেলনে দুপক্ষের মারামারির ছবি তুলতেগেলে সময় টিভির আলোকচিত্র সাংবাদিক পাপ্পুকে মেরে আহত ও ক্যামেরা ভাংচুর করেন একটি চক্র। এ ছাড়া রাজশাহী আলো পত্রিকার প্রকাশক ও প্রতিবেদকের  বিরুদ্ধে আদলতে মানহানি মামলা করেছেন একটি সুবিধাবাদী চক্র। অন্যদিকে গনমুক্তি পত্রিকার রাজশাহী প্রতিনিধি ও বিজয় টিভির ক্যামেরা পারসন সাংবাদিক চপল ৫ ফেব্রুয়ারী মোহনপুরে আবাদি জমি  খেকো দস্যুদের আবাদি জমিতে পুকুর খননের ছবি তুলেত গিয়ে লাঞ্ছিত হয়ে আদলতে মামলা দায়ের করেছেন। চলতি মাসে দূরনীতির সংবাদ প্রকাশ করায় বাংলাদেশ প্রতিদিনের রাজশাহী ব্যুরো প্রধান কাজী শাহেদের নামে আদালতে মান হানির মামল দায়ের ও গত ২০১৯ সালে কালের কন্ঠের রাজশাহী ব্যুরো প্রধান রফিকুল ইসলামকে কোন কারন ছাড়াই জন সম্মূখে মেরে আহত করে প্রভাবশালী দূরনীতিবাজদের পেটুয়া বাহিনী।সাংবাদিকদের মিথ্যা মামলা ,হামলা , হয়রানী নিরসনে অচিরেই নতুন আইন তৈরীর আহব্বান জানিয়েছেন সাংবাদিকবৃন্দ।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button