মোহনপুররাজশাহী সংবাদ

মোহনপুরের ফুলশো উচ্চ বিদ্যালয়ে বাঁশ দিয়ে তৈরি শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ 

মাজেদুর রহমান (সবুজ): রাজশাহী জেলার মোহনপুর উপজেলার কেশরহাট পৌরসভার ফুলশো উচ্চ বিদ্যালয়ে বাঁশের তৈরি শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক করেছেন শিক্ষক, শিক্ষাথী ও স্থানীয়রা।
জানা গেছে, বিদ্যালয়টি ১৯৯১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। বিদ্যালয়টি মোঃ সাইদুর রহমান ও তোফাজ্জল হোসেনের উদ্যোগে এবং গ্রামবাসীর সহযোগিতায় প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিষ্ঠার পর থেকে বিদ্যালয়টি শতভাগ ফলাফল করে আসছে এবং ১৯৯৯ সালের এপ্রিল মাসে বিদ্যালয়টি এমপিওভুক্তকরণ হয়।
বর্তমানে বিদ্যালয়ে ১৬ জন শিক্ষক-কর্মচারী ও ৩৫০ জন শিক্ষার্থী রয়েছেন। বিদ্যালয়টির শিক্ষক-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীরা সকল জাতীয় দিবস উদযাপন করেন। এই বছর বিদ্যালয়টি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী সহ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২১শে ফেব্রুয়ারিতে পুষ্পস্তবক অর্পণসহ সকাল ৮:৩০ মিনিটে প্রভাতফেরির আয়োজন করেন। কিন্তু সবচেয়ে দুঃখজনক বিষয় হলো এই বিদ্যালয়ে স্থায়ী কোন শহীদ মিনার নেই।
প্রতিবছর বিদ্যালয়টির শিক্ষক-কর্মচারীরা নিজ উদ্যোগে সকল ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য বাঁশ দিয়ে অস্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণ করেন এবং বাঁশের নির্মাণকৃত সেই শহীদ মিনারে বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক-শিক্ষিকা ও কর্মচারীসহ শিক্ষার্থীরা পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।
এ ছাড়াও পার্শ্ববর্তী সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষার্থীরা এই বিদ্যালয়ে নির্মিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পন করতে আসেন। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাইলে বিদ্যালয়টির সহকারী প্রধান শিক্ষক মোঃ শফিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের বিদ্যালয়টিতে স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মান করতে না পারার অন্যতম কারণ হলো বিদ্যালয়ের আর্থিক সমস্যা।
তিনি আরো বলেন, কেশরহাট পৌরসভা মেয়র মোঃ শহীদুজ্জামান শহীদ কয়েকবার প্রতিশ্রুতি দিলেও তিনি এখনো আমাদের বিদ্যালয়ে শহীদ মিনারটি নির্মাণ করে দেননি। তবে এ বছরে মাননীয় মেয়র বিষয়টি আমলে নিয়ে খুব দ্রুত শহীদ মিনারটি নির্মাণ করে দিবেন বলে আমরা সকল শিক্ষক-শিক্ষিকা ও কর্মচরীরা আশাবাদ ব্যক্ত করছি।
এ বিষয়ে অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আব্দুর রহমানের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, বর্তমানে স্বাধীনতা স্বপক্ষের সরকার রাষ্ট্র পরিচালনায় আছেন। আমি আশা করছি, সংশ্লিষ্ট দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রণালয়, স্থানীয় সংসদ সদস্য ও মাননীয় মেয়র মহোদয়ের সুদৃষ্টি কামনা করছি যে, আমাদের বিদ্যালয়ে স্থায়ী শহীদ মিনারসহ সীমানা প্রাচীর নির্মাণের যথার্থ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য।
স্থানীয়রা বলেন, শিক্ষার্থীদের মাতৃভাষার প্রতি শ্রদ্ধাশীল এবং ভাষার ইতিহাস সম্পর্কে সচেতন করে তোলার জন্য বাংলাদেশের প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একটি করে স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণ করা অতীব জরুরী।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button