বাঘারাজশাহী সংবাদ

বাঘায় রাস্তা নির্মাণে প্রাণ গেল বন বিভাগের দেড় শতাধিক গাছের

বাঘা প্রতিনিধি : রাজশাহীর বাঘায় বন বিভাগের প্রায় দেড় শতাধিক গাছ উপড়ে ফেলে পাকা রাস্তা নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। রাস্তার মাটি খননের ড্রেজার মেশিন (ভেকু) দিয়ে এই গাছগুলো উপড়ে ফেলা হয়েছে বলে জানা গেছে। বুধবার উপজেলার পীরগাছা গ্রামের আফতাব হোসেনের বাড়ি থেকে মাঝপাড়া খোকনের মোড় পর্যন্ত সাড়ে ৫০০ মিটার পাকা রাস্তা নির্মাণের জন্য রাস্তার দুই পাশের বিভিন্ন জাতের প্রায় দেড়শতাধিক গাছ ডেজার (ভেকু) মেশিন দিয়ে উপড়ে ফেলা হয়। এ বিষয়ে বন বিভাগের পক্ষ থেকে বাঘা থানায় সাধারণ ডাইরি করা হয়েছে।

জানা যায়, ২০১৯-২০ অর্থ বছরে স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে উপজেলার উন্নয়ন অবকাঠামোর, ৩০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ওই রাস্তা নির্মাণের কাজ পেয়েছেন, বাঘা পৌর আ’লীগের সভাপতি আবদুল কুদ্দুস সরকার। পাঁকা রাস্তা নির্মাণের জন্য মাটি কেটে বেড তৈরির অজুহাতে, ঠিকাদারের ভেকু’র (খনন যন্ত্র ড্রেজার) ড্রাইভার রাস্তার দুই পাশের বির্ভিন্ন জাতের গাছগুলো উপড়ে ফেলেন। গাছগুলোর মধ্যে রয়েছে, বাবলা ২৪টি, জিনজিরা ৩৩টি, কড়ই ৪টি, খেজুর ৩২টি, গামা ৪টি, মেহগনি ২০টি, ৫টি আমগাছসহ প্রায় দেড় শতাধিক ।

সরেজমিনে বুধবার বিকেলে কথা হলে, ভেকু’র ড্রাইভার শহিদুল ইসলাম জানান, রাস্তার মধ্যে কিছু গাছ ছিল। নিয়ম মোতাবেক পাঁকা রাস্তার বেড় তৈরির জন্য মাটি কাটার সময়, সেগুলো কাটতে গিয়ে ব্যক্তিমালিকানা জমির উপর পড়ে কিছু ফসলের ক্ষতি হয়েছে। স্থানীয় কতিপয় ব্যক্তি নিজের প্রয়োজনে আমাকে দিয়ে সেই কাজটি করে নিয়েছেন।

বাউসা ইউনিয়ন পরিষদের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার ও ফতেপুর গ্রামের শফিকুল ইসলাম বলেন, যে গাছগুলো উপড়ে ফেলা হয়েছে সেইগুলো প্রায় ১৭ বছর আগে বন বিভাগের লাগানো। পীরগাছা-মাঝপাড়া খোকনের মোড় পর্যন্ত এক কিলোমিটার রাস্তার দুই ধারে বনবিভাগের পক্ষ থেকে প্রকল্পের মাধ্যমে গাছগুলো লাগানো হয়েছে। সেই প্রকল্পের ৯ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির সভাপতি হিসেবে আমি উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও বন বিভাগের (ফরেস্টার) কর্মকর্তাকে অবহিত করেছি।

উপজেলা বন বিভাগের (ফরেস্টার) কর্মকর্তা জহুরুল হক বলেন, এ ধরনের ঘটনার জন্য স্থানীয় জাহিদ নামের এক ব্যক্তিকে চিহ্নিত করে তার বিরুদ্ধে বাঘা থানায় সাধারণ ডাইরী করা হয়েছে। উর্দ্ধতন কর্মকর্তার পরামর্শে বন আইনে আদালতে মামলা দায়ের করা হবে। বাউসা ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মাঝপাড়া গ্রামের জাহিদ হোসেন বলেন, পাকা রাস্তা নির্মাণের প্রয়োজনে গাছ উপড়ে দেয়া হয়েছে। ঠিকাদার আবদুল কুদ্দুস সরকার বলেন, ঘটনাস্থলে যায়নি। তবে রাস্তার বেড কাটতে গিয়ে রাস্তার পাশের গাছ উপড়ে ফেলার কথা শুনেছি।

বাঘা থানার ওসি নজরুল ইসলাম বলেন, সাধারণ ডাইরি করা হয়েছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নিব। উপজেলা প্রকৌশলী রতন ফৌজদার বলেন, বিষয়টি জানার পর সেখানে তার অফিসের একজন অফিসার পাঠিয়েছিলেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহিন রেজা বলেন, বন বিভাগকে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছি।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button