বাঘারাজশাহী সংবাদ

বাঘায় ভেজাল গুড় কারখানায় অভিযান: উপকরণ জব্দসহ ৩০ হাজার টাকা জরিমানা

বাঘা প্রতিনিধি:
রাজশাহীর বাঘায় ভেজাল খেজুর গুড় তৈরীর কারখানায় অভিযান চালিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত। এ অভিযানে চিনি গালাই করে খেজুর গুড় তৈরীর সময় কারখানা মালিক মুন্টু পালিয়ে গেলেও হাতে নাতে আটক হয় তার ভাগনে আশিক আলম। পরে আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গুড় ধবংস করে ৩০ হাজার টাকা অর্থদন্ড করেন কারখানা মালিকের। বুধবার দুপুরে উপজেলার তেপুখুরিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, চলতি শীত মৌসুমে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভেজাল গুড় তৈরী না করার জন্য এলাকায় মাইকিং করা হয়। তারপরও কিছু ব্যক্তি নাম মাত্র খেজুর রসের সাথে চিনি, আটা, হাইড্রোস, ফিটকারি, সোডা, চুন, নারিকেলের তেল, রং মিশ্রন করে গুড় তৈরী করা হচ্ছে। তারা অধিক মুনাফা লাভের আসায় ভেজার গুড় তৈরী করে বাজারজাত করছে।

উপজেলার তেপুখুরিয়া গ্রামের মন্টু আলী, শহিদুল ইসলাম, আবুল হোসেনের বাড়িতে চিনি গালাই করে ভেজার খেঁজুর গুড় তৈরী হচ্ছে এমন তথ্যে ভিত্তিতে বুধবার দুপুরে বাঘা থানার পুলিশকে সাথে নিয়ে প্রথমে মন্টু আলীর বাড়িতে অভিযান পরিচালনা করেন আদালতের নির্বাহী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিন রেজা। এ সময় মন্টু পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায়। তবে হাতে নাতে আটক হয় তার ভাগনে আশিক। সে প্রশাসনের কাছে অপরাধ স্বীকার করায় আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কারখানা মালিকের রিসিফের মাধ্যমে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। একই সাথে নকল গুড় গুলো ধব্বংস করেন। তারপর অন্য দুই বাড়িতে গেলে কাউকে পাওয়া যায়নি। তারা ঘরে তালা ঝুলিয়ে অন্যত্র সটকে পড়েন।

বাজুবাঘা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও তেপুকুরিয়া গ্রামের জুলফিকার আলী বলেন, চিনি দিয়ে খেঁজুর গুড় তৈরী করা অপরাধ। এলাকায় এ ধরনের কর্মকান্ড চলছে ঘটছে জানা ছিলনা। সামনের দিনগুলোতে যাতে এ ধরনের কর্মকান্ড না ঘটে সে বিষয়ে খোঁজ খবর রাখবো।

ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিন রেজা বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তিন বাড়িতে অভিযান চালিয়ে একজনের ৩০ হাজার টাকা জরিমানা ও ১০ মণ গুড় এবং গুড় তৈরীর উপকরন জব্দ করা হয়েছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button