রাজশাহী সংবাদ

বাগমারায় ১৯ দিন পর কবর থেকে বিধবার লাশ উত্তোলন

বাগমারা প্রতিনিধি:  রাজশাহীর বাগমারার আউচপাড়া ইউনিয়নের সাইধারা গ্রামের আক্তার বানু (৪২) নামের এক বিধবার লাশ দাফনের ১৯ দিন পর কবর থেকে তোলা হয়েছে। প্রথম শ্রেনীর এক ম্যাজিষ্ট্রটের উপস্থিতিতে কবর থেকে লাশ উত্তোলন করে ময়না তদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্ত শেষে ওই কবরেই দাফন করা হবে বলে জানা গেছে।

সোমবার বেলা সাড়ে ১০ টার দিকে রাজশাহী জেলা প্রশাসকের নিযুক্ত প্রথম শ্রেনীর ম্যাজিষ্ট্রেট সহকারী কমিশনার (ভুমি) মাহামুদুল হাসানের উপস্থিেিত কবর থেকে বিধবা আক্তার বানুর লাশ উত্তোলন করা হয়।তার উপস্থিতিতে গলিত লাশের সুরাতহাল প্রতিবেদবন প্রস্তুত করে ময়না তদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়েছে। লাশ উত্তোলনের সময় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ছাড়াও পুলিশের কর্মকর্তা এবং এলাকার লোকজন উপস্থিত ছিল।

বাগমারা থানার পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ১৭ ফেব্রুয়ারী রাতে নিজ বাড়িতে বিধবা আক্তার বানুর মৃত্যু হয়। তিনি চার বছরের শিশু সন্তানসহ স্বামীর বাড়িতেই বসবাস করতেন। ১৮ ফেব্রুয়ারী সকাল ১০ টায় আক্তার বানুর লাশ দাফনের কথা থাকলেও কাউকে না জানিয়ে তড়িঘরি করে লাশ দাফন করে পরিবারের সদস্যরা। আত্মীয় স্বজনদের উপস্থিতির পূর্বেই রাশ দাফনে সকলে মনে সন্দেহের সৃষ্টি হয়।

এদিকে ঘটনার এক সপ্তাহ পর বিধবার বোন হালিমা কাতুন বাদী হয়ে নিহত আক্তার বানুর ভাসুরসহ তিন জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় তার বোনকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করা হয়েছে অভিযোগ আনা হয় আসামীদের বিরুদ্ধে। মামলাটি আমলে নিয়ে আদালত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বাগমারা থানার ওসিকে নির্দেশ দেন। আদালতের নির্দেশে পুলিশ মামলার তদন্ত কাজ শুরু করেন। ময়না তদন্তের জন্য আদালত লাশ উত্তোলনের নির্দেশ দেন। আদালতের নির্দেশ মোতাবেক জেলা প্রশাসকের কাছে একজন প্রথম শ্রেনীর মাজিষ্ট্রেট চেয়ে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। পুলিশের আবেদন পেয়ে জেলা প্রশাসক একজন প্রথম শ্রেনীর ম্যাজিষ্ট্রেট নিয়োগ করে লাশ উত্তোলনের নির্দেশ দেন। সে মোতাবেক বিধবা আক্তার বানুর লাশ কবর থেকে তোলা হয়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হাটগাঙ্গোপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। ময়না তদন্ত শেষে বিধবার মৃত্যুর রহস্য পাওয়া যাবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

মামলার আসামীরা দাবি করেছেন, তারা আক্তার বানুকে করেন নি। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তিনি মারা যেতে পারেন। তার ছেলের অনুমতি নিয়েই নির্ধারিত সময়ের আগে লাশটি দাফন করা হয়েছে। তারা চক্রান্তের শিকার বলে জানিয়েছেন। মামলার বাদী দাবী করেছেন, তার বোনকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করে তড়িঘড়ি করে লাশ দাফন করা হয়েছে। অনেককে লাশ দেখানো হয় বলে তারা দাবী করেছেন। স্বজনেরা জানান, লাশের ময়না তদন্ত শেষে আগের কবরেই দাফন করা হবে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button