বাগমারারাজশাহী সংবাদ

বাগমারার আলোচিত জাবের-লুৎফর বাহিনীর প্রধানকে জিজ্ঞাসাবাদ

বাগমারা প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাগমারায় আলোচিত জাবের বাহিনীর প্রধান জাবের আলী কে জেল গেটে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুুিলশ। রিমান্ডের প্রথম দিনেই তার কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ন তথ্য পেয়েছে পুলিশ। রোববার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের সময় তিনি পুলিশকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দেন বলে জানা যায়।

গত ২০ জানুয়ারী বাগমারার জাবের বাহিনীর প্রধান জাবের কে জেলা ডিবি পুলিশ গ্রেফতার করে। চাঁদাবাজ সন্ত্রাসী দখলবাজ ক্যাডার জাবের বাহিনীর প্রধান জাবের আলী ও তার এক সময়ের গুরু ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান যিনি জাবের বাহিনীর প্রতিপক্ষ লুৎফর রহমান বাহিনীর প্রধান লুৎফর রহমানকে রোববার শুনানী শেষে এক দিনের রিমান্ড মন্জুর করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

জাবের আলীর বিরুদ্ধে গত ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে উপজেলার বাসুপাড়া ইউনিয়নের বীরকয়া গ্রামের মোবারক হোসেন নামের এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হাত-পা ভেঙ্গে দেয় জাবের আলীসহ তার বাহিনীর লোকজন। ওই ঘটনায় আহত মোবারক হোসেনের স্ত্রী নাজমা বিবি বাদী হয়ে গত বছরের ৩ ডিসেম্বর জাবের বাহিনীর প্রধান জাবেরসহ ১০ জনকে আসামী করে বাগমারা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়ের পর পরই জাবেরসহ তার বাহিনীর লোকজন বেপরোয়া হয়ে উঠে। এলাকার একের পর এক অপরাধমূলক কর্মকান্ডে ত্রাসের রাজস্ব কায়েম করেন। পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা তাকে গ্রেপ্তার করতে ব্যর্থ হয়।

বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় ও জাতীয় পত্রিকাসহ ইলেকট্রনিক্স মিডিয়া সংবাদ প্রচার শুরু করলে আইন শৃংখলা বাহিনীর উধর্বতন মহলের নজরে আসে। পুলিশের উপর মহল জাবের আলীকে গ্রেপ্তারের জন্য রাজশাহী জেলা গোয়েন্দা পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন। জেলা গোয়েন্দা পুলিশ অভিযান চালিয়ে গত ২০ জানুয়ারী জাবের বাহিনীর প্রধান জাবের আলীসহ তার দেহরক্ষী জিয়াউর রহমানকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠিয়ে দেয়।

বাগমারা থানা পুলিশ আদালতে হাজির হয়ে জাবের বাহিনীর প্রধান জাবের আলীর ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন। আদালত জাবের আলীকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। রিমান্ডের প্রথম দিনেই জাবের আলী পুলিশকে গুরুত্ব পূর্ণ তথ্য দিয়েছে বলে জানা গেছে।

আ’লীগ নেতা লুৎফর রহমানের ছত্রছায়ায় তিনি অনেক অপরাধমূলক কর্মকান্ড করেছেন বলে তিনি পুলিশকে জানিয়েছেন। জিজ্ঞাসাবাদে তাকে কে কে ইন্দন দিয়েছেন এবং আ’লীগের কোন কোন নেতা এখন তার সঙ্গে থেকে এমন কর্মকান্ড করাচ্ছেন তাও তিনি পুলিশকে জানিয়েছেন। দ্বিতীয় দিনে তাকে আরো জিজ্ঞাবাদ করা হবে বলে জানা গেছে।

একই ভাবে গত ২২ জানুয়ারী মঙ্গলবার একই ইউনিয়নের মন্দিয়াল গ্রামের মৃত বুদাই প্রাং এর পুত্র ছাবেদ আলী(৪৫) চাঁদাবাজি, জোরপূর্বক তুলে নিয়ে আটকে রেখে নির্যাতন,পুকুর দখল ও ভয়ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ এনে একই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি লুৎফর রহমান ও তার ছোট ভাই রফিকুল ইসলাম সহ ১০ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ১৭ জনের বিরুদ্ধে বাগমারা থানায় একটি মামলা দায়ের করে।

এই মামলায় পুলিশ রাতভর অভিযান চালিয়ে পাঁচজনকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। ওই মামলার আসামী হিসেবে লুৎফর রহমানকে রোববার আদালতে মাধ্যমে জেল গেটে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড চাইলে একদিনের মন্জুর করা হয়েছে বলে জানা যায়।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বাগমারা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সৌরভ কুমার চন্দ্র সাংবাদিকদের সঙ্গে রিমান্ডের বিষয়ে কথা বলতে রাজী হননি। তবে জিজ্ঞাসাবাদে জাবের আলী পুলিশকে যে সকল তথ্য দিয়েছে তা যাচাই-বাচাই করবে বলে জানা গেছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button