পুঠিয়ারাজশাহী সংবাদ

পুঠিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিম্নমানের কোম্পানির ওষুধ লেখার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক : পুঠিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে  নিম্নমানের কোম্পানির ওষুধ লেখার অভিযোগ অভিযোগ উঠেছে। এতে করে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা প্রতিনিয়ত প্রতারিত হচ্ছেন।

একদিকে তাদের অপচয় হচ্ছে অর্থ অপর দিকে তারা দিনের পর দিন একই রোগ নিয়ে ডাক্তরদের কাছে ধরনা ধরছেন। এদিকে পুঠিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কপ্লেক্সে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের সংকট রয়েছে। তাদের ছাড়াই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্য সেবা পরিচালিত হচ্ছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত ডাক্তারেরা বিভিন্ন নিম্নমানের কোম্পানির সাথে মাসিক চুক্তি ছাড়াও বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার মাধ্যমে তাদের কোম্পানির ওষুধ লিখছেন। এসব ওষুধ খেয়ে রোগীরা আশানুরুপ ফল পাচ্ছেন না বলে একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

উপজেলার বিভিন্ন হাটে বাজারে ও প্রাইভেট ক্লিনিকের চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে একই অভিযোগ রয়েছে। তারাও তাদের সাথে যে সব কোম্পানি চুক্তিতে আসেন তাদের ওষুধই লিখেন। এছাড়াও বেশ কিছুদিন থেকে ডিব্বা বা কৌটা কোম্পানি নামে খ্যাত এক ধরনে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ওধুষ এখন ডাক্তারের সচরাচর লিখছেন। বেশির ভাগ হাড়ের ও বাত ব্যথার রোগিদের এধরনে ওষুধ ডাক্তারের লিখে থাকেন। এসব ডিব্বা বা কৌটা কোম্পানির ওষুধ রোগীরা খেয়ে কোন উপকার না পাওয়ার অভিযোগ থাকা সত্তেও ডাক্তারেরা তাদের চুক্তির কারণে লিখে থাকেন। এলাকার অভিজ্ঞ মহলের ধারণা, ডাক্তারি পেশা যারা রয়েছেন তারা মানুষের সেবা করার ব্রত নিয়ে এসেছেন কিন্তু অনেক সময় তাদের এই কথা ভুলে গিয়ে ডাক্তারী পেশাকে টাকা আয়ের একটি মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়েছেন। বর্তমানে টাকা আয়ের অসুস্থ্য প্রতিযোগিতার সাথে তারা যুক্ত হওয়ায় এলাকার দরিদ্র, অসহায় সকলেই সর্বশান্ত হচ্ছেন।

একারণে আমাদের বর্তমানের চিকিৎসার উপর অনেকেরই আস্থা হারিয়ে ফেলছেন। তারা উন্নত চিকিৎসার আশায় পার্শ্ববর্তী দেশে পাড়ি জমাচ্ছেন। এতে করে দেশের প্রতি বছর বিপুল পরিমান অর্থ চলে যাচ্ছে বিদেশে। এছাড়াও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসাকে ঘিরে ব্যাঙের ছাতার মতে গড়ে উঠেছে কিনিক ও ডায়াগনেষ্টিক সেন্টার। এসব ক্লিনিক ও ডায়াগনোষ্টিক সেন্টারের দালালদের অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে পড়েছে রোগী ও রোগী আতিয় স্বজনেরা।
এসব ডায়াগনোষ্টিক সেন্টারের দালালেরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আউটডোর ও ইমারজেন্সিতে ভিড় করে থাকে। কোন রুগিকে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ডাক্তারেরা লিখলেই ডায়াগনোস্টিক সেন্টারের দালালদের তৎপর হতে দেখা যায়। মাঝে মধ্যে এসব দালালদের মধ্যে রোগীদের নিয়ে টানা হিচড়ার মত ঘটনা ঘটে। এতে গ্রামের দরিদ্র অসহায় রোগিরা পড়েন বিপদে। এবিষয়ে পুঠিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাক্তার নাজমা আক্তার বিশেষজ্ঞয ডাক্তারের স্বল্পতার কথা স্বীকার করে বলেন, কোন ডাক্তার নিম্নমানের কোম্পানির ওধুষ লিখলে তিনি বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন। 

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button