পুঠিয়ারাজশাহী সংবাদ

পুঠিয়ায় দুইজন শিক্ষক জাল নিবন্ধন সনদপত্র নিয়ে চাকরি করার অভিযোগ উঠেছে

পুঠিয়া প্রতিনিধি: পুঠিয়ায় একটি উচ্চ বিদ্যালয়ের দুইজন সহকারি শিক্ষকের নিবন্ধন সনদপত্র জাল বলে অভিযোগ উঠেছে। এলাকাবাসীরা অভিযুক্ত দুই শিক্ষকদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত আভিযোগ জমা দিয়েছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, পুঠিয়া উপজেলার সৈয়দপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে হিন্দুধর্ম কাব্যতীর্থ বিষয়ের শিক্ষিকা নিলিমা রানী সরকার এবং কৃষি বিজ্ঞান বিষয়ের শিক্ষক গোলাম মোশেদ গত ২০১১ সালে একই সঙ্গে বিদ্যালয়ে ব্যবস্থাপনা কমিটি নিয়োগ দেয়। তারা দীর্ঘ দিন থেকে বিদ্যালয়টিতে শিক্ষকতা করে আসছে।

এলাকাবাসীরা বলেন, তারা বিদ্যালয়ের এক শিক্ষকের মাধ্যমে জানতে পারে, কৃষি এবং কাব্যতীর্থ বিষয়ের শিক্ষক দুইজনের নিবন্ধন সনদপত্র জাল। শিক্ষক দুইটি নিবন্ধন সনদপত্র যে জাল তা আমরা ইন্টানেটের মাধ্যমে জানতে পেরেছি।

এরপর এলাকাবাসীরা সংগঠিত হয়ে গত ৪ নভেম্বর রাজশাহী জেলা প্রশাসক, জেলা শিক্ষা অফিস, উপজেলা শিক্ষা অফিস, শিক্ষা মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন দপ্তরে জাল সনদপত্র নিয়ে শিক্ষকতা করার বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

রাজু আহম্মেদ নামের এলাকাবাসী বলেন, তৎকালিন সময়ে সৈয়দপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটি সদস্যরা মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে যাচাইবাছাই না করে তখন জাল নিবন্ধন সনদপত্র দিয়ে দুইজন শিক্ষককে নিয়োগ দিয়ে ছিল। আমরা এলাকার লোকজন বিদ্যালয়ের এবং নিজেদের সস্তানের ভবিষ্যেতের কথা চিন্তা করে ন্যায় বিচার চাই। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপজেলা শিক্ষা অফিসের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, উপজেলার প্রায় বিদ্যালয়ের কাব্যতীর্থ বিষয়সহ অনেক কর্মচারি ও শিক্ষকদের জাল সনদপত্র দিয়ে চাকরি করছে।

সঠিক ভাবে যাচাইবাছাই করলে তার সত্যতা পাওয়া যাবে। সৈয়দপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ফজলুর রহমান বলেন, আমি যখন এই দুইজন শিক্ষককে নিয়োগ দেয়। তখন জেলা ও উপজেলর সংশ্লিষ্ট বিভাগের সনদপত্র যাচাইবাছাই করার জন্য প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। তাদের সুপারিশ মোতাবেক নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জাহীদুল হক অভিযোগ পাওযার বিষয়টি স্বাীকার করে বলেন, জাল নিবন্ধন সনদপত্র দেখার দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button