বাঘারাজশাহী সংবাদ

নারীর গায়ে গোবর ছিটিয়ে টাকা ছিনতায়ের চেষ্টা

বাঘা প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাঘায় ব্যাংক থেকে টাকা তুলে বাড়ী ফেরার পথে এক নারীর গায়ে গোবর লাগিয়ে অভিনব কায়দায় ছিনতায়ের চেষ্টা চালিয়েছে দুই প্রতারক। এ ঘটনা বুঝতে পেরে স্থানীয় জনতা আটক করে দুই প্রতারককে পুলিশে দিয়েছে। রোববার সকালে বাঘা সোনালী ব্যাংকের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি এলাকায় ব্যাপক আলোচিত হয়।
সূত্রে জানা যায়, কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার বাংলা বাজার দক্ষিণপাড়া গ্রামের শহিদুল ইসলামের স্ত্রী শাহানারা বেগম (৬০) তার পিতা মরহুম আবদুল হামিদের পেনশনের টাকা উত্তোলনের করার জন্য রোববার সকালে তিনি বাঘা সোনালী ব্যাংকে আসেন। এক পর্যায় ৯ হাজার ৯৫৪ টাকা উত্তোলন করে ব্যাংক থেকে নিচে নেমে আসেন।

এ সময় পাবনার ঈশ্বরদীর আম বাগান এলাকার আশরাফ মন্ডলের ছেলে আবদুস সালাম (৬৫) ও একই এলাকার নুর মোহাম্মদের ছেলে ইনতাজ আলী (৬০) ওই নারীর গায়ে অভিনব কায়দায় গোবর লাগিয়ে দেয়।

এ দুই প্রতারকই তাকে গোবর ধুয়ে দেয়ার জন্য বাঘা পৌরসভার মধ্যে টিউবয়েলের কাছে নিয়ে যায়। সেখানে ওই নারীর ব্যাগে থাকা টাকা ছিনতাই করার চেষ্টা করে। এ সময় স্থানীয় অন্তর খান নামের এক যুবক ৯৯৯ নম্বরে কল করে। কল পাওয়ার সাথে সাথে বাঘা থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে ওই দুই প্রতারককে আটক করে।

তবে ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌছানোর আগে দুই প্রতারককে স্থানীয়রা গণধোলাই দেয়। গণধোলায়ে তারা আহত হয়। আহত অবস্থায় পুলিশের সহযোগিতায় তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হয়।
এ বিষয়ে শাহানারা বেগম জানান, আমার বাবা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন। তার পেনশনের টাকা উত্তোলন করার পর দুই প্রতারক আমার গায়ে কৌশলে গোবর লাগিয়ে টাকা ছিনতায়ের চেষ্টা করে। বিষয়টি আমি প্রথমে বুঝতে পারিনি। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় রক্ষা পেয়েছি।

বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দুই প্রতারককে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button