দূর্গাপুররাজশাহী সংবাদ

নতুন কৌশল ফেরিওয়ালা সেজে মাদক বিক্রি

রাজশাহী সীমান্তের ২ উপজেলা

দুর্গাপুর (রাজশাহী) প্রতিনিধিঃ রাজশাহীর দুর্গাপুর ও বাগমারার সীমান্ত এলাকায় মাদক কারবারিরা ফেরিওয়ালা সেজে মাদক কেনাবেচা করছেন। দুই উপজেলার সীমান্ত এলাকায় প্রশাসনের নাকের ডগায় চলছে এই অবৈধ ব্যবস্যা। দিনে ভ্রাম্যমাণ ফেরিওয়ালা ও রাতে গাড়ির চালক কখনো বা গাড়ির যাত্রী সেজেও মাদকের রমরমা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। তাদের কাছে রয়েছে ইয়াবা, হেরোইন, গাঁজা ও ফেনসিডিলসহ নানা রকমের মাদক।

জানা গেছে দুই উপজেলার সীমান্ত এলাকায় দাপিয়ে বেড়াচ্ছে মাদক কারবারিরা। এমনকি ওই এলাকাগুলোতে মাদকের সহজলভ্যতা রয়েছে। যা হাত বাড়ালেই পাওয়া যায় ইয়াবা, হেরোইন, চোরাই মদ, গাঁজা ও ফেনসিডিলসহ নানা রকমের মাদক। দুই উপজেলা সীমান্ত এলাকায় দিন দিন এর ব্যবহার বাড়ছে। এ নিয়ে উদ্বেগ উৎকণ্ঠায় দিন কাটাচ্ছে এলাকাবাসীরা।

এলাকার ভুক্তভোগীরা বলেন, মাদকাসক্তদের তৎপরতায় আমরা বিব্রত ও শঙ্কিত। মাদকের কারণে এসব এলাকার অনেক বাড়িতেই বিপর্যয় নেমে এসেছে। এছাড়া মাদকের সহজলভ্যতায় বলে দেয় কী বিপর্যয়ের মধ্যে আছে তরুণ-তরুণীরা। মাদকের কারণে প্রতিদিন এলাকায় ঘটছে চুরি, ছিনতাই এবং ইভটিজিংয়ের মতো ঘটনা। এদিকে, বাগমারা উপজেলার মোহনগঞ্জ বাজারের মাছ পট্টি, মিশুক স্ট্যান্ড, স্কুল ও কলেজের পেছনে এবং নদীর ধারে, রাস্তার আনাচে-কানাচে চলে মাদকের কেনাবেচা বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেন। প্রকাশ্যে এসব স্থানে মাদক কেনাবেচা করে চলেছে।

রাজশাহী জেলার পুলিশ সুপার শহিদুল হক যোগদানের পরপরই রাজশাহীর সব থানায় মাদকবিরোধী ও পুলিশের বিশেষ অভিযান জোরদান করায় জেলার বিভিন্ন থানায় অপরাধমূলক কর্মকা- বহুতাংশে হ্রাস পেলেও এ দুই সীমান্তবর্তী উপজেলায় মাদকবিরোধী অভিযানের ছোঁয়া লাগেনি বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন।

এদিকে দুর্গাপুর উপজেলার সীমান্ত এলাকা মোহনগঞ্জ বাজার সংলগ্ন পুরানতাহিরপুর, সুইচ গেট বাজারের ফেরিওয়াল দোকানদার রমরমা বিক্রি করছে মাদক। যা সাধারণ মানুষ দেখেও বলার কিছু নেই। এছাড়া বাজারের পোল্ট্রি মুরগির ব্যবসার আড়ালেও বিক্রি করছে মাদক। ফেরিওয়ালা সেজে মাদক কারবারিরা প্রতিদিন সকালে মাদক নিয়ে বেরিয়ে পড়ে উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম-গঞ্জে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, মাদক কেনাবেচা নিয়ে দুর্গাপুর উপজেলার পুরানতাহিরপুর সুইচ গেট বাজারে দ্বন্দ্ব-ফ্যাসাদ লেগেই থাকে। ওই ঘাট যেন বালু মহলের মতো মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে ডাক করে নিতে হয় বলেও জানা যায়। আরো জানা গেছে, পুরানতাহিরপুর গ্রামের সরকার দলীয় কতিপয় নেতার ছত্রছায়ায় এমন কার্যক্রম চলে। দুর্গাপুর উপজেলার পুরানতাহিরপুর ছাড়াও, গোপালপুর বাজার, শিবপুর, ইশবপুর, কয়ামাজমপুর, নান্দিগ্রাম, আলিপুরসহ এলাকার বিভিন্ন গ্রামে বিক্রি হচ্ছে মরণনেশা মাদক।

বাগমারা থানার ওসি আতাউর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত আছে এবং আগামীতে মাদকের জিরো টলারেন্সের জন্য আমি কড়া ব্যবস্থা নেব।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (পুঠিয়া সার্কেল) আবুল কালাম সায়েদ জানান, মাদক নিয়ে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। পুলিশ নিয়মিত অভিযান করছে। এর মধ্যে যদি মাদক কারবারিরা নতুন কৌশল অবলম্বন করে তাহলেও তারা ধরা পড়বে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button