নওগাঁরাজশাহী সংবাদ

ধর্ষণের সময় হাতেনাতে আটক যুবক, পিটিয়ে হাসপাতালে ভর্তি

নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর সাপাহারে ধর্ষণের সময় এক যুবককে আটক করে গণপিটুনী দিয়ে হাসপাতালে ভর্তি করেছে এলাকাবাসী। এবিষয়ে থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলার সহদল পাড়া ও ওমইল বাজার এলাকার মাঝামাঝি একটি আমবাগানে ঘটনাটি ঘটেছে।

আটক যুবক হলেন সহদল পাড়া গ্রামের তছলিম উদ্দীনের ছেলে মোরশেদ আলী (২২)।

থানায় দায়েরকৃত মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার সহদল পাড়ার এক মেয়ে স্থানীয় উমইল দাখিল মাদ্রাসায় ৯ম শ্রেণীতে পড়াশোনা করত। সে সূত্রে মেয়েটি প্রতিদিনের ন্যায় বিকেলে ওই মাদ্রাসার এক শিক্ষকের নিকট প্রাইভেট পড়তে মাদ্রাসায় যায়। ঘটনাক্রমে প্রাইভেট শিক্ষক সে দিন না থাকায় শিক্ষকের অপেক্ষায় সময় কাটিয়ে মেয়েটি সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে সহদলপাড়া তার বাড়ির উদ্দেশে মাঠের আইল রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলো। এসময় তার গ্রামের অদূরে একটি আমবাগানের নিকট পৌঁছামাত্র মোর্শেদ আলী তার পথ রোধ করে। এরপর মোর্শেদ মেয়েটিকে বাগানের ভিতর নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে। এসময় মেয়েটি চিৎকার করতে থাকলে মেয়েটিকে এগিয়ে নিতে আসা তার মা ও তার সাথের লোকজন মেয়ের চিৎকার শুনতে পেয়ে তারাও চিৎকার শুরু করে।

এতে গ্রামের ভিতর থেকে লোকজন ছুটে এসে বাগান ঘেরাও করে। এসময় মোরশেদ আলীকে হাতেনাতে ধরে ফেলে তারা। এসময় সেখানে তাকে মারধর করে তারা। মারপিটের একপর্যায়ে মোরশেদের মাথা ফেটে যায। এতে স্থানীয় লোকজন তাকে তাৎক্ষণিক সাপাহার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এরপর মেয়েটির বাবা ঘটনার বিবরণ শুনে ওই রাতেই সাপাহার থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে রাতেই নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মোরশেদকে আটক করে পুলিশ।

বর্তমানে মোরশেদ পুলিশ পাহারায় সাপাহার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভর্তি রয়েছেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button