রাজশাহী সংবাদ

দেবে যাচ্ছে রাজশাহীর টি বাঁধ, ফেলা হচ্ছে জিও ব্যাগ

নিজস্ব প্রতিবেদক : ফারাক্কার প্রায় সবগুলো গেট খুলে দেওয়ার অস্বাভাবিকভাবে বাড়তে শুরু করেছে পদ্মার পানি। ধেয়ে আসা পানির প্রবল স্রোতে হুমকির মুখে পড়েছে শহররক্ষা টি বাঁধটি। বাঁধটি রক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ড ৫০০ বস্তা জিও ব্যাগ ফেলছে। এছাড়া পুলিশ লাইনের সামনের বাঁধ রক্ষায় ফেলা হচ্ছে আরো দুই হাজার বস্তা জিও ব্যাগ।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শহিদুল আলম জানান, কয়েকযুগ আগের টি বাঁধটি প্রবল স্রােতে কিছুটা দেবে গেছে। জিও ব্যাগ ফেলে রক্ষার চেষ্টা চলছে।

তিনি আরো জানান, বুধবার সকাল ৯ টায় বিপদসীমার ৩৪ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে ১৮.১৬ মিটানো পানি বয়ে যায়। এদিকে পানিবন্দী বাঘা উপজেলার চরাঞ্চলের ১৮শ পরিবারকে জেলা প্রশাসন ২০ কেজি করে চাল অনুদান দিয়েছে। এছাড়া ৪৮৬ প্যাকেট শুকনো খাবার বিতরন করা হয়েছে।

টানা বর্ষণে পদ্মাসহ দেশের বিভিন্ন নদ-নদীতে বাড়তে শুরু করেছে পানি। শুকনো মৌসুমে পদ্মায় পানি না থাকলেও রাজশাহীর চরাঞ্চল এখন ডুবতে বসেছে ফারাক্কা থেকে ধেয়ে আসা পানিতে। হুমকির মুখে পড়তে বসেছে রাজশাহী শহর রক্ষা বাঁধও।

টানা বর্ষণে রাজশাহী অঞ্চলের বিভিন্ন চর ও নিচু এলাকা প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এরমধ্যে ভারত গত সোমবার (৩০ সেপ্টেম্বর) ফারাক্কা বাঁধের সব লকগেইট খুলে দিয়েছে। ফলে অস্বাভিকভাবে বাড়তে শুরু করেছে পদ্মার পানি।

পদ্মা নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানি বেড়ে যাওয়ায় তলিয়ে গেছে অনেক ফসলি জমি। পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন শত শত মানুষ।

গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহীর পদ্মায় প্রবাহ বেড়েছে ১১ সেন্টিমিটার। যা আগের ২৪ ঘণ্টায় প্রবাহ বেড়েছিল ৬ মিটারের মতো। ফলে পদ্মার পানি এখন বিপদসীমার ১৮ দশমিক ৫০ মিটারের কাছাকাছি চলে এসেছে। গত মঙ্গলবার সকাল দশটায় পানি পরিমাপ করার পর এ তথ্য জানা গেছে।

ইতোমধ্যে ভাঙন প্রতিরোধে বেশকিছু দিন ধরে মহানগরীর টি-বাঁধ এলাকায় বালুভর্তি জিও ব্যাগ রাখা হয়েছে।

এ দিকে, রাজশাহীর পদ্মার চরাঞ্চল থেকে লোকজনকে সরিয়ে নিতে রাজশাহী জেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এমপি। গত সোমবার রাতে নিজের ফেসবুকে স্ট্যাটাস লিখে এ ব্যাপারে নির্দেশনা দেন তিনি।

ফেসবুকে পোস্টে প্রতিমন্ত্রী লেখেন, ‘পদ্মা নদীর পানি ৫ অক্টোবর পর্যন্ত বাড়তে পারে, তারপর কমা শুরু হতে পারে।

তিনি লেখেন, ‘ঢাকায় কথা বলে প্রথম দফায় কিছু ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। একটু আগে ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে বিস্তারিত কথা হয়েছে। আমি রাজশাহী জেলা প্রশাসককে নির্দেশনা দিয়েছি রাজশাহীর গোদাগাড়ী ও পবাসহ সকল চরাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হলে (প্রয়োজন হলে) মানুষ সরিয়ে মূল ভূখন্ডে কয়েকদিনের জন্য নিয়ে আসার জন্য। এজন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি রাখতে বলা হয়েছে। মন্ত্রণালয় থেকে দ্রুত এবং বাড়তি বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে।

স্থানীয় উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা সমন্বয়ের মাধ্যমে কাজগুলো করবেন বলে উল্লেখ করেন তিনি।

এদিকে পানি বৃদ্ধির ফলে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন চরাঞ্চলের মানুষ। শত শত হেক্টর জমির সবজি ও ফসল তলিয়ে গেছে। আরও নতুন নতুন এলাকায় প্লবিত হওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে। পাবিবন্দী মানুষ তাদের গৃহসামগ্রী নিয়ে উঁচু জায়গায় যাচ্ছে।
চরের বাসিন্দা জিয়া জানান, তাদের নিচু অংশে ফসলসহ জমি তলিয়ে গেছে। বিভিন্ন স্থানে নতুন করে প্লবিত হচ্ছে ফসলি জমি।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button