দূর্গাপুররাজশাহী সংবাদ

দূর্গাপুরে শুরু হয়েছে ঐতিহ্যবাহী ঘোড়াদহ মেলা

নিজস্ব প্রতিবেদক: অাশ্বিন মাসের শেষ দিনে দূর্গাপুরবাসীর কাঙ্ক্ষিত দিনটি আসে। এ সময় রাজশাহীর দূর্গাপুরের জনপদ উৎসবের আমেজে রঙিন হয়ে ওঠে। দোকানিরা এ সময় মেলার মাঠে পসরা সাজিয়ে বসে। ভোর হতেই শিশু-কিশোররা শুরু করে ছোটাছুটি। প্রায় দেড়শ’ বছরের পুরনো রাজশাহীর দূর্গাপুর উপজেলার উজানখলসী নদী তীরে বসে ঘোড়াদহ এ গ্রামীণ মেলা। শুরুতে মেলাটি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের জন্য হলেও বর্তমানে তা সব ধর্মের মানুষের উৎসবে পরিণত হয়েছে।

ছবি:মেলায় ভিড় করে জিনিস কিনছেন ক্রেতারা

সকাল থেকেই মেলা প্রাঙ্গন মুখরিত হয়ে ওঠে নানান বয়সী মানুষের পদচারণায়। শিশুরা বড়দের কাছে বায়না ধরে টমটম গাড়ি, চড়কি, নানা রঙের পুতুল ও বেলুন কিনে দেয়ার জন্য। পাশাপাশি বড়রা কিনছে দৈনন্দিন ব্যবহার্য কাঠ-বাঁশ-বেতের তৈরি আসবাবপত্র ও মাছ ধরার সরঞ্জাম। মেয়েরা কিনছে মাটির হাড়ি, পিঠা তৈরির সাঝ, পিড়ি, মালসা, জলচৌকি ও রান্নার তৈজসপত্রসহ আরো কত কী!

১৫ দিনব্যাপী চলবে এ মেলা। তিলা, কদমা, নিমকি, শখের মিঠাই, চানাচুর, মাসের বোরা, খই, বাতাসা ও হরেক রকম খাবারের ঘ্রাণে ভারি হয় মেলার প্রান্তর। পুতুল নাচ, নাগরদোলা, ঘূর্ণি বিদেশ, বেলুন-বন্দুক নিশানায় মেতে ওঠে নানা বয়সী শিশু-কিশোরের দল। মেলা হবে আর চটপটি-ফুচকা হবে না, তা কি হয়? আলু-ডাবলির সঙ্গে তেঁতুলের পানি মেশানো ঝাল-টক চটপটি নস্টালজিক বয়স্কদের জিভেও পানি আসে। তাই মেলায় চটপটি-ফুচকা ছাড়া কল্পনাও করা যায় না।

মেলায় আসে কুমারদের মাটির গড়া স্বপ্ন। তারা মাটি ছেনে তৈরি করেন দেশি-বিদেশি ফলের রঙিন ব্যাংক, সাহেব-মেম, বউ পুতুল, গরু, ছাগল, হাতি, বাঘ, সিংহ, ঘোড়া, কুমির, হাঁস, মুরগি, মাছ, পেখম তোলা ময়ূর এবং পাখি। যার উপস্থিতি চিরায়ত গ্রামবাংলার কুমারপাড়ার শৈল্পিক জীবনের সংগ্রামী অস্তিত্বের জানান দেয়।

কথা হয় মেলায় আগত শিশু দর্শনার্থী উপজেলার অালীপুর কিন্ডার গার্টেন স্কুলের প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থী রাশেদ সরকার ও রিপন (৮) সঙ্গে। রিপন জানায়, তার স্কুলের পাশেই মেলা বসে। এজন্য সে প্রতিদিন স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে মেলা উপভোগ করে। মেলা থেকে তার বাবা তাকে গাড়ি ও বেলুন কিনে দিয়েছে।

দেবীপুর পৌর এলাকার গ্রামের গৃহবধূ রোজীনা বেগম (২৫) এসেছেন সংসারের প্রয়োজনীয় কিছু তৈজসপত্র কিনতে। তিনি জানান, প্রতিবছর এই মেলা থেকে প্রয়োজনীয় জিনিস ক্রয় করেন। তাই আজকেও এসেছেন। দাম একটু বেশি হলেও অনেক জিনিস একসঙ্গে একই জায়গায় পাওয়া যায়।

মায়ের সঙ্গে এসেছে শিশু সামি ও হাসান (৭)। মাত্র কথা বলা শিখেছে। তাই ভাঙা ভাঙা শব্দে সামি জানায়, মায়ের সঙ্গে মেলায় এসেছে বড় পুতুল কিনতে।

শ্যামপুর বাজারের স্থানীয় ব্যবসায়ী মো.সাত্তার উদ্দিন (৬৫) জানান, তার জ্ঞান হওয়ার পর থেকে উজানখলসী ঘোড়াদহ গ্রামীণ মেলা দেখে আসছেন। কিন্তু তারও আগে দাদা এবং বাবার কাছে এই মেলার কথা শুনেছেন। শুরুতে এই মেলাটি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের জন্য হলেও বর্তমানে তা সব ধর্মের মানুষের আনন্দের-উৎসব। প্রথমে এক দিনব্যাপী হলেও পরে তিন, সাত দিনব্যাপী এবং সভ্যতার ক্রমবিকাশে এখন ১৫ দিনব্যাপী হয়ে থাকে। এর একটি অংশ ফার্নিচার মেলা থাকে মাসব্যাপী।

তিনি আরো জানান, বর্তমানে এখানে আর কোনো গ্রাম নেই তবে মেলায় বিক্রি হোক আর না হোক; বছরের পুরনো ঐতিহ্য টিকিয়ে রাখতেই প্রতি বছর এ মেলার আয়োজন করে থাকেন স্থানীয় কিছু সংস্কৃতিমনা মানুষ।

বগুড়া থেকে মেলায় খেলনার দোকান নিয়ে এসেছেন মো. মোরশেদ (৪০)। তিনি জানান, ১০ বছর যাবৎ তিনি এই মেলায় দোকান নিয়ে আসছেন। বেচা-কেনা যাই হোক স্থানীয় মানুষের সঙ্গে অন্যরকম একটা সম্পর্ক হয়েছে।

গাজীপুরের সালনা থেকে এম ডি রিফাত (২৬) এবারই প্রথম খেলনার দোকান নিয়ে এসেছেন। কিন্তু মেলায় এসে এখানকার গ্রামীণ পরিবেশ তার খুব ভালো লেগেছে। তাই তিনি চেষ্টা করবেন প্রতিবছরই আসার।

মেলায় বিক্রমপুর থেকে ক্রোকারিজের দোকান নিয়ে এসেছেন পঞ্চাশোর্ধ মো. রফিকুল ইসলাম। তিনি জানান, প্রায় দুই যুগ ধরে তিনি এই মেলায় আসেন। তাছাড়া প্রায় এক যুগ ধরে তিনি একই জায়গায় দোকান নিয়ে বসেন। এখানকার মানুষের সাথে ভালো একটা সম্পর্ক হওয়ায় এই দিনটির জন্য তিনি মুখিয়ে থাকেন। আসলেই চেনা-জানা সবার সঙ্গে দেখা হয়।

মেলায় কসমেটিক্স দোকানি মোজাফ্ফর
(৪৫) জানান, তার দোকানে মহিলা গ্রাহকের ভিড় প্রচুর। তাই বিক্রিও ভালো। তিনি মনে করছেন, এই ধারা অব্যাহত থাকলে ভালো লাভের মুখ দেখতে পারবেন।

প্রতিবছরের ন্যায় এবারে ঘোড়াদহ মেলার আয়োজনও ব্যাপক পরিসরে হয়েছে বলে জানান মেলা পরিচালনা কমিটির সভাপতি আবদুল ওয়াহাব। তিনি বলেন,
মেলায় স্বল্প খরচে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা ব্যবসায়ীদের স্টলের ব্যবস্থা ও করা হয়েছে। উজানখলসী মেলার মূল মাঠ ছাড়া ও অারো বিভিন্ন স্থানে যেমন, শ্যামপুর বাজার,অালীপুর বাজার ও মেলা বসেছে।

এ বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম বলেন, এবারের মেলায় গ্রাম বাংলার এতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ সহ হরেক রকমের আয়োজন থাকবে। পুরো মেলা জুড়ে থাকছে নিরাপত্তা বেষ্টনী। দুর্গাপুর উপজেলার এতিহ্যবাহী ঘোড়াদহ মেলা উপভোগ করতে আসা দর্শনার্থীদের যেন কোন ভোগান্তী না হয়।

দুর্গাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খুরশীদা বানু কণা জানান, মেলায় যাতে কোনো প্রকার জুয়া বা অসামাজিক কার্যক্রম এবং আইন-শৃঙ্খলার অবনতি না ঘটে সে জন্য অাইনশৃঙ্খলা বাহীনির নিয়মিত টহল থাকবে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button