দূর্গাপুররাজশাহী সংবাদ

দূর্গাপুরে এখনও ধরা-ছোয়ার বাইরে মাদক সম্রাট রহমত

নিজস্ব প্রতিবেদক : সরকার যখন মাদকের বিরুদ্ধে সারাদেশে মাদক বিরোধী অভিযান অব্যহত রেখেছে। মাদকের বিরুদ্ধে প্রশাসনের জিরোটলারেন্স অভিযান চলছে। শহর থেকে গ্রাম পর্যন্ত মাদক বিরোধী অভিযানে রাজশাহীসহ সারাদেশে নিহত হয়েছে অনেক বড় বড় মাদক ব্যবসায়ীরা।

কিন্তুু রাজশাহীর দূর্গাপুর উপজেলার নান্দিগ্রাম এলাকার একাধিক মাদক মামলার আসামী কুখ্যাত মাদক সম্রাট রহমত আলী (৩৫) ধরা ছোয়ার বাইরে এলাকায় রমরমা মাদক ব্যবসা করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মাদক সম্রাট রহমত আলী উপজেলার নান্দিগ্রাম এলাকার বাসিন্দা।

সাম্প্রতিক মাদক ব্যবসা করে লাখ টাকা খরচ করে আলিশান পাকা দুই তালা বাড়ি নির্মান করছে। কুখ্যাত এ মাদক ব্যবসায়ী কে প্রশাসন গ্রেপ্তার না করায় হতাশ এলাকাবাসী।

জানা গেছে, একাধিক মাদক মামলা ও হত্যা মামলার আসামী কুখ্যাত মাদক সম্রাট রহমত আলী বর্তমানে দূর্গাপুর উপজেলায় রমরমা মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে প্রশাসনের ধরা ছোয়ার বাইরে থেকে। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত তার নিজের মটোরসাইকেলে করে বিভিন্ন স্থানে ফেনসিডিল, গাঁজা ও ইয়াবা বিক্রয় করছে প্রকাশ্যে। সকাল থেকে বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রায় ১০০ মটরসাইকেল যোগে প্রতিনিয়তো যুবকরা মাদক সেবনের জন্য দূর্গাপুর উপজেলার নান্দিগ্রামে ছুটে আসে মাদক ব্যবসায়ী রহমত আলীর কাছে।

মাদক ব্যবসায়ী রহমত বিভিন্ন সময় এলাকার আলীপুর মোড়ে, নান্দিগ্রাম মোড়ে, শিবপুর বিলে, গোপালপুর বাজারে মাদক বিক্রয় করেন। তার মটরসাইকেলে করে এসব এলাকা মাদকের স্পর্ট তৈরি করেছে এ মাদক ব্যবসায়ী রহমত আলী। দীর্ঘদিন যাবত মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত সে। গ্রাম এলাকা হওয়ার সুবাদে প্রশাসনের ধরা ছোয়ার বাইরে রয়ে গেছে মাদক সম্রাট রহমত।

এলাকাবাসী সুত্রে আরো জানা গেছে, কিছু দিন আগে এই রহমত আলী একদিন মানুষের কাজ না কোরলে তার খাবার জুটেনি। সম্প্রতিক এলাকায় মাদকের রমরমা ব্যবসা করে তৈরি করছে আলিশান পাকা বাড়ি। সারা দেশে মাদক ব্যবসায়ীরা গ্রেপ্তার হলেও এ রহমত আলী প্রশাসনের কাছে গ্রেপ্তার হয়নি বলে এলাকা বাসী হতাশ। গ্রামের মানুষ তাকে মাদক ব্যবসা বন্ধ করার জন্য প্রতিবাদ করলে উল্টা মাদক সম্রাট রহমত মানুষ কে পুলিশ প্রশাসন দিয়ে হয়রানি করার হুমকি দেয়। প্রশাসনের ধরা ছোয়ার বাইরে থেকে মাদক ব্যবসা করে খুব দ্রুত বিশাল অবৈধ সম্পদ গড়ে তুলেছে সে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, মাদক ব্যবসায়ী রহমত আলীকে মাদক ব্যবসা বন্ধের প্রতিবাদ করলে। সে উল্টা এলাকার মানুষ কে হুমকি দিয়ে বলে, পুলিশ, আইনশৃঙ্খলা বাহিনি আমার হাতে। আমি পুলিশ, ডিবি, আইনশৃঙ্খলা বাহীনি কে ম্যানেজ করে ফেনসিডিল, গাঁজা ও ইয়াবা বিক্রয় করি। বেশি কথা বললে মাদক বাড়িতে রেখে জেল খানায় ঢুকিয়ে দিব। তার অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। তার হুমকির মুখে ভয়ে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পায়না বলে জানান স্থানীয়রা।

এ বিষয়ে দূর্গাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ খুরশিদা বানু কণা জানান, শুনেছি নান্দিগ্রাম এলাকায় রহমত মাদক ব্যবসা করছে। মাদক ব্যবসায়ী ধরা ছোয়ার বাইরে এমন কোন ব্যবসায়ী থানা এলাকায় থাকবে না। দূর্গাপুর এলাকায় কোন মাদক ব্যবসায়ীকে ছাড় দেয়া হবে না। পুলিশ তাকে গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রেখেছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button