দূর্গাপুররাজশাহী সংবাদ

দুর্গাপুর উপজেলা চেরারম্যানের বিরুদ্ধে কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

ভাম্যমান প্রতিনিধি: রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলায় আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয় গড়ে তোলার নামে ১০০ মেট্রিক টন টিআর প্রকল্পের ১০০ মেট্রিক টন গম আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। যার আনুমানিক মূল্য প্রায় ৭০ লাখ টাকা। এছাড়াও নৈশ প্রহরী নিয়োগ নিয়ে স্থানীয় উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ব্যাপক বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। এসব নিয়ে উপজেলার ৫ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও দুর্গাপুর পৌরসভার মেয়র স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ দুর্নীতি দমন কমিশনসহ বিভিন্ন দপ্তরে পাঠানো হয়েছে। গত ২২ জানুয়ারি উপজেলা চেয়ারম্যান নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে এ অভিযোগটি করেন তাঁরা। এতে গত পাঁচ বছরে চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম আঙ্গুল ফুলে কলাগাছে পরিণত হয়েছেন বলেও উল্লেখ করা হয়। অভিযোগকারীরা হলেন, দুর্গাপুর পৌরসভার মেয়র তোফাজ্জল হোসেন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বানেছা বেগম, কিসমত গণকৈড় ইউপি চেয়ারম্যান আফসার আলী মোল্লা, জয়নগর ইউপি চেয়ারম্যান সমসের আলী, ঝালুকা ইউপি চেয়ারম্যান মোজাহার আলী মণ্ডল, দেলুয়াবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াজুল ইসলাম ও পানানগর ইউপি চেয়ারম্যান আজাহার আলী।

ওই অভিযোগে বলা হয়, পাঁচ বছর আগেও নজরুল ইসলামের ছিল একটি জরাজীর্ণ বাড়ি। উপজেলা সদরে তাঁর বাড়িতে যাওয়ার রাস্তাটুকুও ছিল হাঁটার মতো গলিপথ। কিন্তু পাঁচ বছরের মধ্যে তাঁর বাড়িটিও যেমন হয়েছে আলিশান, তেমনি প্রকল্পের টাকায় বাড়িতে যাওয়ার রস্তাাটিও করা হয়েছে কার্পেটিং। উপজেলা পরিষদের পুকুরের রাস্তা দখল করে বাড়ি যাওয়ার রাস্তাটি করা হয়েছে প্রকল্পের টাকায়। এছাড়া প্রভাব খাটিয়ে জাল সনদে স্ত্রীকে দিয়েছেন দুর্গাপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে গ্রন্থাগারিক পদে চাকরি। নজরুল ইসলাম উপজেলা আওয়ামী লীগের নিজস্ব কার্যালয় স্থাপনের নামে ৪০ লাখ টাকা মূল্যের ১০০ মেট্রিক টন টিআরের গম নিজেই বিক্রি করে ইট কিনলেও নিজের বাড়ি নির্মাণের কাজে লাগিয়েছেন।

এছাড়া গত ৫ বছরে ১৬টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী নিয়োগের আগেই কোটি টাকা বাণিজ্য করেছেন। স্থানীয় সংসদ সদস্য (এমপি) ও উপজেলা চেয়ারম্যান চাকরিপ্রত্যাশীদের কাছে থেকে এ মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলেও দুর্নীতি দমন কমিশনে অভিযোগ করা হয়।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালে প্রথম বারের মতো উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর দুর্গাপুরের ১৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তার মাধ্যমে দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়। পরে ওই ১৬টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিজ এলাকার স্ব স্ব চাকরি প্রত্যাশীরা স্কুলে নিয়োগের জন্য আবেদন করেন। এর পরই উপজেলা চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম অর্থের বিনিময়ে তাদের পছন্দমত প্রাথী নির্বাচন করেন। এসব চাকরি প্রত্যাশীদের নিকট প্রত্যেকের কাছে ১২ থেকে ১৪ লাখ টাকা নিয়েছেন বলে অভিযোগে উল্লেখ্য করা হয়েছে।

ওই অভিযোগে আরো বলা হয়, ২০১৮ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি ১৩ মে ও ১৯ সালের ২০ এপ্রিল স্থানীয় সরাকার মন্ত্রণালয়ের অনুমতি ছাড়া সরকারি নীতিমালা অমান্য করে একাধিক বার বিদেশ ভ্রমণ করেন।

এদিকে অনিয়মের এসব বিষয় নিয়ে জানতে চাইলে নজরুল ইসলাম বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ করা হয়েছে তার কোনোটির সত্যতা নাই। কিছু মহল আমার সুনাম খুন্ন করার জন্য এসব অপপ্রচার চালাচ্ছে। আমি কোনো অনিয়ম করিনি।’

দুর্গাপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের একজন সদস্য জানান, দুদক এর অভিযোগের বিষয়টি নিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম গত সপ্তাহে নেতাকর্মীদের ডেকে নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তিনি দাবি করেন একটি মহল আমার নামে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দিয়েছে যার কোন ভিত্তি নেই। তিনি আরো বলেন, আমার প্রতিপক্ষ নির্বাচনে জয়ী হতে না পেরে এমন গুজব ছাড়াচ্ছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button