দূর্গাপুররাজশাহী সংবাদ

দুর্গাপুরে সরকারি রাস্তা দখল করে পানবরজ!

দুর্গাপুর প্রতিনিধি:
রাজশাহী দুর্গাপুরে সরকারি সড়ক দখল করে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে রহিদুল ইসলাম নামের এক প্রভাবশালী ব্যাক্তির বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী। সড়কটি বন্ধ হলে এলাকাবাসী, পথচারী ও স্কুলগামী শিক্ষার্থীর চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হবে। এতে জনগণের ভোগান্তি বাড়বে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা। স্থানীয়রা প্রতিকার চেয়ে ৪ নং দেলুয়াবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াজুল ইসলামকে মৌখিক ভাবে জানান। এ ঘটনায় চেয়ারম্যান কোন ব্যবস্থা নিতে পারেননি। এতে প্রভাবশালী রহিদুল জোরপূর্বক সরকারি রাস্তা দখল করে নেয় এবং তার বিরুদ্ধে কেউ কোন কিছু করতে গেলে জামেলা করবে বলে জানান। এমনকি তার ভয়ে এলাকার কেউ কোন কথা বলতে পারছে না। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর প্রতিকার চেয়ে একটি লিখিত অভিযোগ করা হয়।
অভিযোগে জানা যায়, শত বছরের আগের উপজেলার কিশোরপুর পশ্চিমপাড়া হতে কিশোরপুর ভাটারমোড় বটতলা পর্যন্ত দুই কিলোমিটার রাস্তা। এর মধ্যে প্রায় হাফ কিলোমিটার দখল করে নেয়। এতে স্থানীয় লোকজনের চলাচলের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়েছে। ।
এ বিষয়ে অভিযুক্ত রহিদুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। এমনকি তার বাড়িতে গিয়ে তাকে ও তার পরিবারের কাউকে পাওয়া যায়নি
বর্তমান ইউপি সদস্য রহেদ জানান, রহিদুল ইসলাম সরকারি রাস্তা দখল করছেন। কিন্তু তাকে কিছু বলতে গেলে সে বলে এখানে কোন সরকারি রাস্তা নেই। এমনকি যা আছে তা দেওয়া হবে। এমনকি আমি এলাকাবাসীর জন্য অনুরোধ করেও কোন লাভ হয়নি।
অভিযোগকারী সাইফুল ইসলাম জানান, সরকারি রাস্তা দখল করে নিয়েছে রহিদুল। এমনকি সাধারন মানুষের চলাচলের এ রাস্তা ভূমির নকশাতেও আছে। এতে বাঁধা দিলে তারা আমাকে হুমকি-ধমকিসহ অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। সড়কটিতে পানবরজ হলে জনগণের চলাচলে অসুবিধা হবে। বিষয়টির প্রতিকার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি।
স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াজুল ইসলাম জানান,কিশোরপুর পশ্চিমপাড়া হতে কিশোরপুর ভাটার মোড় বটতলা পর্যন্ত চলাচলের একমাত্র রাস্তা। সরকারি রাস্তাটি দখল মুক্ত না হলে স্কুলগামী শিক্ষার্থী ও পথচারীদের মারাত্মক দুর্ভোগ পোহাতে হবে। তবে সড়কটি কেটে একটি প্রভাবশালী মহল দখলের চেষ্টা করছে যা নতুন করে এলাকাবাসীর ভোগান্তির কারণ হতে পারে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহসীন মৃধা বলেন, অভিযোগটি অফিসে দিতে পারে তা আমার জানা নেই। তবে আমি অভিযোগটি দেখে আইনগত ব্যবস্থা নেবো বলে জানান।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button