দূর্গাপুররাজশাহী সংবাদ

দুর্গাপুরে শিক্ষার্থীদের থেকে অতিরিক্ত অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিএনপির নেতা ডাবলুর স্ত্রীর বিরুদ্ধে রাজশাহীর দুর্গাপুর নওপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি নির্বাচনী পরীক্ষায় অতিরিক্ত টাকা নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে । এঘটনায় দুর্গাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন শিক্ষার্থীর অভিভাবক। জানা যায়, আসন্ন এসএসসি টেস্ট পরীক্ষায়

নওপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সোহরাফ হোসেন ও সহকারি শিক্ষিকা রেহেনা পারভীনের যোগসাজসে টেস্ট পরীক্ষার ফি বাবদ ৭৪ জন পরীক্ষার্থীর কাছ থেকে ৭৭০ টাকা করে আদায় করা হয়। রেহেনা নওপাড়া ইউনিয়ন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ডাবলুর স্ত্রী। অভিভাবকেরা জানতে পেরে প্রধান শিক্ষকের কাছে প্রতিবাদ করলে উল্টো ছেলেদের ফেল করানো হবে বলে হুমকি দেয়। এমনকি রেহেনা পারভিন স্কুলের সহকারি শিক্ষিকা হয়েও তিনি দায়িত্ব পালন করেন ক্যাশিয়ারের।

অভিযোগ রয়েছে, বিএনপির ওই নেতার কথাতেই প্রধান শিক্ষক উঠেন আর বসেন। তিনি যা বলেন, তাই হয় ওই প্রতিষ্ঠানের আইন। তারপরেও স্ত্রীকে সহকারি শিক্ষিকা বানিয়ে দায়িত্ব দিয়েছেন ক্যাশিয়ারের। প্রধান শিক্ষককে প্রভাব দেখিয়ে হাতে রেখে দিনের পর দিন স্ত্রীকে দিয়ে অনিয়ম ও দুর্নীতি করছেন।

গত অক্টোবর মাসে আসন্ন এসএসসি টেস্ট পরীক্ষার সময় অভিভাবকেরা অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ করায় ওই প্রতিষ্ঠানে আকাশ নামের এক শিক্ষার্থীর গণিত বিষয়ের পরীক্ষার খাতা কেড়ে নিয়ে রেখে দেয়া হয়। পরে পরীক্ষার শেষ সময়ে আকাশকে খাতা দেয়া হয়। এভাবে তার খাতা জমা নেয়া হয়। এ নিয়ে অন্যান্য শিক্ষার্থীরা প্রতিবাদ করলে তাদেরও এমন কাজ করবেন বলে ভয় দেখানো হয়। প্রধান শিক্ষক ও সহকারি শিক্ষিকা রেহেনার ভয়ে প্রতিষ্ঠানের কোন শিক্ষার্থী কিছু বলতে পারছে না। শুধু তাই নয় অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের ঘটনায় আকাশের বাবা মাহাবুব উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করলে তার ছেলের এসএসসি পরীক্ষা দেওয়া হবে না বলে সাফ জানিয়ে দেন প্রধান শিক্ষক ও সহকারি শিক্ষিকা রেহেনা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেক শিক্ষার্থীর অভিভাবক বলেন, দীর্ঘদিন থেকে বিএনপির নেতা ডাবলুর নিয়ন্ত্রণে প্রতিষ্ঠান পরিচালিত হয়ে আসছে। তিনি তার স্ত্রী রেহেনাকে দিয়ে প্রধান শিক্ষকের সাথে নানান অনিয়ম-দুনীতি করে আসছেন। কেউ তার ভয়ে কিছু বলতে পারে না। আমার ছেলের নিয়মিত বেতন দিয়ে আসলেও কোনদিন রশিদ দেখিনি। তারা যা চায়, তাই দিয়ে আসছি। কোনদিন হিসাব নিকাশও দেখিনি। প্রতিষ্ঠানের তেমন কোন উন্নয়নও নেই। যা হয় তা খেয়ে ফেলে তারা।

প্রতিষ্ঠানের সভাপতি মাহাবুর রহমানের সাথে এ বিষয়ে জানতে তার মোবাইল ফোনে একাধিক বার কল দিলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।

প্রধান শিক্ষক সোহরাফ হোসেন বলেন, টেস্ট পরীক্ষার ফি বাবদ ৭৭০ টাকা আদায় করা হয়নি। এমনকি টাকা আদায়ের রশিদের বিষয়ে জানতে চাইলে তা দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

এদিকে শিক্ষার্থী আকাশের খাতা কেড়ে নেওয়ার বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি মোবাইল ফোনে হবে না, আপনি আমার সাথে সরাসরি দেখা করেন বলে ফোন রেখে দেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button