দূর্গাপুররাজশাহী সংবাদ

দুর্গাপুরে জাতীয়পার্টির নেতা বেলাল পৌর যুবলীগের সভাপতি: দাপটে ত্যাগী নেতাকর্মীরা কোণঠাসা

এস এম শাহাজামাল, দুর্গাপুর:
রাজশাহীর দুর্গাপুরে জাতীয়পার্টির নেতা বেলাল হোসেনের দাপটে আওয়ামীলীগের ত্যাগী নেতাকর্মীরা কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। জাতীয়পার্টির ওই নেতা এখন পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হয়ে দাপুটে নেতায় পরিণত হয়েছে। শুধু তাই নয় ওই নেতাদের বিরুদ্ধে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীর অভিযোগ জমি দখল, পুকুর দখল, সাধারণ মানুষকে হয়রানিসহ ত্যাগি আওয়ামীলীগ নেতাদের কোণঠাসা করে দাপুটে নেতায় পরিণত হয়েছে। তাদের দাপটে ত্যাগি নেতাকর্মীরা এখন কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। এমনকি জাতীয়পার্টির ওই নেতাদের কারনে আওয়ামীলীগের ত্যাগী অনেক নেতাকর্মীরা রাজনীতি ছেড়ে দেওয়ার ঘোষনা দিয়েছেন।
জানা যায়, গত বিএনপি সরকারের সময় দুর্গাপুর ডিগ্রী কলেজের ছাত্র ফন্ডের দাপটে নেতা ছিলেন বেলাল হোসান। এমনকি সে উপজেলার বরিদবাশাইল গ্রামের জাতীয়পাটির তৃণমূলের সক্রিয় নেতা হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তৎকালীন সময়ে সে আওয়ামীলীগের বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীকে নির্যাতন করেছেন বলে জানা যায়। আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার পরে নিজের সুবিধা আদায়ের জন্য সুযোগ বুঝেই ক্ষমতালীল আওয়ামীলীগে যোগ দেন।

ক্ষমতাশীল দলের সুবিধার আদায়ের জন্য অর্থের বিনিময়ে দুর্গাপুর পৌর যুবলীগের সভাপতি পদ আদায় করে নেন। এর পর থেকে সে নিজের গ্রাম বরিদবাশাইলের তৃণমূলের আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীর উপর দলীয় পদের দাপট ছড়িয়ে দেয়। সেই থেকে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের মধ্যেচাপা ক্ষোভ বিরাজ করে চলেছে। শুধু তাই নয় পৌর যুবলীগের পদ পাওয়ার সাথে সাথে সে এলাকার ২একর ২৮শতাংশ খাস পুকুর দখলে নেওয়ার চেষ্টা চালায়। এমনকি সে ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরে ওই খাস পুকুর ৮ লাখ টাকা দিয়ে টেন্ডার দেন। সেই টাকা মসজিদে দেওয়ার নামে নিজে জোর করে ভোগ করেন। তার পর থেকে স্থানীয় লোকজন ও মসজিদ কমিটিকে সরকারি খাস পুকুরে যেতে দেননি বেলাল।

এদিকে, গত উপজেলা নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী হয়ে দলীয় পদের ক্ষমতায় বরিদবাশাইলের আন্দে নামে এলাকায় পরিচিত সরকারি খাস পুকুর নিজের ইচ্ছায় হান্নান মাষ্টার নামের এক ব্যাক্তির কাছে লিজ দিয়ে ২লাখ টাকা নেয়। এঘটনায় স্থানীয় আওয়ামীলীগের মধ্যে চলছে উত্তেজনা।
এমনকি নয়া ওই আওয়ামী লীগার পৌর যুবলীগের সভাপতি পদের বলয়ে এলাকার ত্যাগী আওয়ী লীগের নেতাকর্মী এবং সাধারন মানুষের কাছ থেকে চাকুরি দেওয়ার নাম করে টাকা হাতিয়ে নেয়।

সেই সাথে এলাকার সরকারি খাস পুকুর গুলোর ইজারা আদায়ে দলীয় পদের প্রভাব দেখিয়ে খবরদারি করে চলেছে। সেই সাথে খাস পুকুর গুলোর লাখ লাখ টাকার সরকারি রাজস্বও হারাচ্ছে
পৌর যুবলীগের সভাপতি পদ পেয়েই এই নয়া আওয়ামীলীগের ত্যাগী নেতাদের কোণঠাসা করে আধিপত্য বিস্তার করে। গত উপজেলা নির্বাচনে নিজে ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করে নৌকার বিরোধিতা করেন। রাজনীতির বাইরে উল্লেখ যোগ্য উপার্জন করার মত তার কোনো সম্পদ বা ব্যবসা নেই।

এ ব্যাপারে পৌর ৫ নং ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারন সম্পাদক রমজান আলী বলেন, বেলাল হোসেন আগে জাতীয়পার্টির ত্যাগী নেতা ছিলেন। এমনকি সে উপজেলার রাজাকার আব্দুল ওহেদ মোল্লার ঘনিষ্টজন ছিলেন। সে দীর্ঘ পাঁচ বছর থেকে দাপটের সাথে পৌর যুবলীগের সভাপতি হয়ে ত্যাগী নেতাদের কোণঠাসা করে রেখেছেন। এমনকি সে উপজেলা নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচন পদে ভোট করলেও আওয়ামীলীগের দলীয় প্রতীক নৌকার বিরোধিতা করেন।

পৌর যুবলীগের সভাপতি বেলাল হোসেন বলেন, মোবাইল নম্বর ০১৭১৬০০৭৫৯০ ব
জেলা যুবলীগের সভাপতি আবু সালেহে বলেন, বেলাল হোসেন আগে কোন দল করতে তা আমার জানা নেই। আমরা স্থানীয় নেতাকর্মীদের সহায়তা নিয়ে দলীয় পদে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তবে এমন প্রামাণ পেলে সাংগঠনিক ভাবে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button