দূর্গাপুররাজশাহী সংবাদ

দুর্গাপুরে কৃষি জমি রক্ষায় মাঠে ইউ এন ও এসিল্যান্ড

অবৈধ পুকুর খনন বন্ধে দিনভর ভ্রাম্যমাণ অভিযান

দুর্গাপুর প্রতিনিধি:রাজশাহী দুর্গাপুরে অবৈধভাবে জমির শ্রেণি পরিবর্তন করে পুকুর খনন বন্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহসীন মৃধা ও উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি (অতিরিক্ত) আনিসুর রহমান। উপজেলা জুড়ে অবৈধভাবে জমির শ্রেণি পরিবর্তন রোধে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

শনিবার সকাল থেকে দিনভর এ অভিযান পরিচালনা করেন। এসময় উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের কৃষি জমি নষ্ঠ করে পুকুর খননের এক্সেভেটর গাড়ীর ব্যাটারি জব্দ করেন। তবে কোন স্থানে পুকুর মালিক বা এক্সেভেটর গাড়ীর চালকে না পাওয়ায় জেল বা জরিমান করা হয়নি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, উচ্চ আদালতের আদেশ অমান্য করে জমির শ্রেণী পরিবর্তন করছে একটি অসাধু চক্র। ওই চক্রটি র্দীঘদিন থেকে উচ্চ আদালতের আর্দেশ অমান্য করে জমির শ্রেণি পরির্বতনের কাজ করছেন। এতে উপজেলার কৃষি জমি নষ্ঠ হচ্ছে এবং কৃষককে ক্ষতির দিকে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। তিনি আরো বলে উপজেলার বেশি ভাগ সাধারন মানুষ কৃষক। তারা কৃষি জমির উপর নির্ভরশীল। জমির শ্রেণী পরিবর্তন করে পুকুর খনন করলে তা দীর্ঘস্থায়ী নয়।

এতে ওইসব প্রান্তিক কৃষকরা আগামী দিনের জন্য হুমকিস্বরূপ হয়ে পড়বে। কারণ আগামীতে ওইসব প্রান্তিক কৃষকরা কর্মহীন হয়ে যাবে আর মধ্যস্থ একটি চক্র এতে লাভবান হবেন। এর ফলে উপজেলার শতশত কৃষক আগামীতে কর্মহীন হয়ে পড়ার সম্ভাবনা বেশি। দ্রুত পুকুর খনন বন্ধ করে ভূমির শ্রেণী ঠিক রেখে কৃষককে বাঁচাতে হবে। তবে এখন আর কেউ সাধারন কৃষকদের ক্ষতি করতে পারবে না। স্থানীয় প্রসাশন ওই চক্রকে প্রতিহত করতে দিনরাত মাঠে কাজ করছেন।

জানা গেছে,শনিবার উপজেলার উজালখলসি, আলিয়াবাদ,নওপাড়া, রাতুগ্রাম,শ্যামপুর, দুর্গাদহ, কুহাড়, পালশা, জয়নগরসহ বিভিন্নি এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান পরিচালনা করেন। এদিকে, ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহসীন মৃধা অবৈধভাবে পুকুর খননের চক্রটিকে কোনো ভাবে ছাড় দিতে নারাজ। আগের মতই নিয়মিত ভাবেই ভ্রাম্যমাণ আদালতের একটি টিম মাঠে কাজ করবে বলে জানান তিনি।
এদিকে, সাধারণ কৃষকরা বলছেন, ইউএনও অবৈধ পুকুর খননের ছাড় না দিলে রক্ষা পাবে কয়েক হাজার কৃষকের হাজার হাজার বিঘা ফসলি কৃষি জমি।

এলাকার কৃষকগণ জানান, প্রায় ৭ বছর থেকে তিন থেকে চার ফসলি জমির শ্রেণি বদল করে এক শ্রেণির মানুষ সাধারণ কৃষকদের ভুলভাল বুঝিয়ে মাছ চাষের জন্য পুকুর খনন করে আসছিলো। গত ৩ বছর থেকে পুকুর খনন মহামারি আকার ধারন করেছে। উপজেলা প্রশাসন থেকে নিষেধাজ্ঞা জারি করেও পুকুর খনন রোধ করা সম্ভব হয়নি। তারা উচ্চ আদালত থেকে পুকুর খননের অনুমতি নিয়ে নেমে পড়ছিলো পুকুর খননে। তবে এবার এখন পর্যন্ত উচ্চ আদালত জমির শ্রেনি পরিবর্তন করে ফসলি জমিতে পুকুর খননের আর্দেশ দেননি। কিন্তু অর্থের প্রভাব দেখিয়ে ওই চক্রটি রাতের আধারে উচ্চ আদালতের আর্দেশ অমান্য করে অবৈধ্যভাবে পুকুর খননের কাজ করছে।

বর্তমানে পাল্লা দিয়ে চলছে পুকুর খনন। সর্ব শেষে গত বছর কৃষি জমিতে পুকুর খনন বন্ধে উচ্চ আদালতের একটি আদেশ পান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। ওই আদেশের পর সপ্তাহব্যাপী উপজেলা জুড়ে পুকুর খনন বন্ধে গণবিজ্ঞপ্তি জারি জরি করেন ইউএনও। এর পরেও পুকুর খনন বন্ধ না হওয়ায় তিনি কৃষি জমি রক্ষার্থে পুকুর খনন বন্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেন। সেই আদেশের উপর আবার উচ্চ আদালতের একটি বেঞ্চ কেন পুকুর খনন করতে পারবে না তার কারণ জানতে চেয়ে পাঠান। পরে নির্বাহী কর্মকর্তা চিঠির জবাব দিয়ে চিঠি পাঠান উচ্চ আদালতের ওই বেঞ্চে।

উল্লেখ্য, এ পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযানে এক্সেভেটর গাড়ীর প্রায় ৩০টি ব্যাটারী জব্দ করা হয়েছে। সেই সঙ্গে একজনকে সাতদিনের জেল দেওয়া হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহসীন মৃধা জানান, কৃষি জমিতে পুকুর খনন বন্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত থাকবে। আমরা কৃষি জমিতে পুকুর খনন বন্ধে নিষেধাকা রয়েছে। অবৈধভাবে পুকুর খনন বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button