দূর্গাপুররাজশাহী সংবাদ

দুর্গাপুরের অবৈধ পুকুর খননে আগাম জমি বন্দোবস্তের উৎসব

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী দুর্গাপুর উপজেলায় আবাদি কৃষি জমিতে অবৈধ পুকুর খননে আগাম জমি বন্দোবস্তের মহাউৎসব চলছে। অবৈধ পুকুর খননকারীরা এলাকার প্রভাবশালী সিন্ডিকেট হওয়ায় তারা জাতীয় ভূমি ব্যবহার নীতিমালা, দেশের প্রচলিত আইন-কানুন, নিয়ম-নীতি কোন ভাবেই তোয়াক্কা করছেন না। তারা ইতিমধ্যেই উপজেলার বিভিন্ন মৌজায় শত-শত বিঘা আবাদি কৃষি জমিতে অবৈধ পুকুর খননের জন্য লীজ গ্রহন করেছেন।

এলাকা সূত্রে জানা যায়, পুকুর খননের ঐ সকল সিন্ডিকেট সদস্যরা পূর্ববর্তী স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে অনেক পরিমান কৃষি জমি অবৈধ পুকুর খনন কাজে ধ্বংস করেছেন। এছাড়াও তারা আর্থিকভাবে খুব প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে সাধারন মানুষ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করে কোন প্রতিকার পায়নি বলে এলাকার ভুক্তভোগীরা জানান। তথ্য সূূত্রে আরো জানা যায় যে, দূর্গাপুর উপজেলায় অবৈধ পুকুর খনন বন্ধে একটি মানবাধিকার ও পরিবেশবাদী সংগঠন ল’ ইয়াস সোসাইটি ফর ‘ল’ মহামান্য হাইকোর্ট বিভাগে রীটপিটিশন দায়ের করায় মহামান্য হাইকোর্ট বিভাগ দূর্গাপুর উপজেলায় আবাদি কৃষি জমিতে অবৈধ পুকুর খনন বন্ধে তাৎক্ষনিক পদক্ষেপ গ্রহনের নির্দেশ প্রদান করেছেন। আদালতের উক্ত আদেশ যথারীতি বলবৎ ও কার্যকর রয়েছে। তা স্বত্তেও দূর্গাপুর উপজেলায় ইতি মধ্যে বিশেষ করে আঙ্গরার বিল ও ইহার চারপাশে উৎপাদনশীল ধানী কৃষি জমিতে অবৈধ পুকুর খননের জন্য অবৈধ পুকুর খননকারী প্রভাবশালী সিন্ডিকেট সদস্যরা পুকুর খননে আগাম জমি বন্দোবস্ত সহ নানা প্রস্তুতি গ্রহণ করছেন। তারা আগামী ১-২ মাসের মধ্যেই অবৈধ পুকুর খননের কার্যক্রম শুরু করবেন বলে এলাকা সূত্রে জানা যায়।

এই ব্যাপারে ল’ ইয়াস সোসাইটি ফর ‘ল’ এর একজন আইনজীবি মোঃ জালাল উদ্দিন (উজ্জল) অবহিত করেন যে, দূর্গাপুর উপজেলায় আবাদি কৃষি জমিতে অবৈধ পুকুর খনন বন্ধে মহামান্য হাইকোর্ট বিভাগের ১৮০১/২০১৯ নং রীটি পিটিশনের প্রদত্ত আদেশ বহাল থাকা স্বত্ত্বেও স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তিরা অবৈধ পুকুর খননের জন্য শত শত বিঘা আবাদি কৃষি জমি আগাম লীজ গ্রহণ করছে। যা আদালত এর আদেশের পরিপন্থি। তিনি আরোও জানান যে, আদালতের আদেশ সম্পর্কে পূর্ববর্তী নির্বাহী কর্মকর্তা গত ০৫/০৩/২০১৯ ইং তারিখে গণবিজ্ঞপ্তি দিয়ে দূর্গাপুর উপজেলায় অবৈধ পুকুর বন্ধে মহামান্য হাইকোর্ট বিভাগের ১৮০১/২০১৯ নং রীটি পিটিশনের আদেশ সম্পর্কে অবহিত করেন এবং সকল কে অবৈধ পুকুর খনন থেকে বিরত থাকার নির্দেশ প্রদান করেন। তথাপিও আদালতের উক্ত আদেশের বিষয়টি গোপন করে ঐসকল অবৈধ পুকুর খননের সিন্ডিকেট সদ্যসরা আদালতের রীট পিটিশন দায়ের মাধ্যমে পুকুর খননের পক্ষে আদেশ পাওয়ার চেষ্টা করছেন বলে তিনি জানান। তিনি এই ক্ষেত্রে বলেন যে, আমরা মহামান্য হাইকোর্ট বিভাগের রীট মোশন এখতিয়ারধীন সকল আদালতে দূর্গাপুর উপজেলায় অবৈধ পুকুর খনন বন্ধে ১৮০১/২০১৯ নং রীটি পিটিশনের আদেশ বিষয়ে অবহিত করেছি। যাতে কোন ব্যক্তি উক্ত আদেশের তথ্য গোপন করে পুকুর খননের পক্ষে আদেশ না পায়।

এছাড়া তিনি আরো জানান যে, দূর্গাপুর উপজেলার বর্তমান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও অফিসার ইনচার্জ এর সহিত এই বিষয়ে কথা হয়েছে। তারা অবৈধ পুকুর খনন বন্ধে আদালতের আদেশ বাস্তবায়নে সক্রিয় রয়েছেন। এই ক্ষেত্রে তিনি জানিয়েছেন যে, আদালতের আদেশ বাস্তবায়নে স্থানীয় প্রশাসনের সক্রিয় দায়িত্ব পালন না করার কারনে যদি দূর্গাপুর উপজেলায় পুনরায় অবৈধ পুকুর খনন অব্যাহত থাকে সেই ক্ষেত্রে ল’ ইয়াস সোসাইটি ফর ‘ল’ আদালতের মাধ্যমে পরবর্তী ব্যবস্থা নিবেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button