রাজশাহী সংবাদ

দরপত্রে অনিয়ম: রামেক হাসপাতালের নামে আবারো মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক:
রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রামেক) রোগীদের পথ্য সরবরাহের দরপত্রে অনিয়মের অভিযোগে আরেকটি মামলা হয়েছে। পাবনার শালগাড়িয়ার আরজেডএস এন্টারপ্রাইজের মালিক মো. রাশেদুজ্জামান বাদী হয়ে মামলাটি করেন। রাজশাহী জেলা যুগ্ম জজ আদালত-১ এর বিচারক জয়ন্তী রানী সাহা মামলাটি আমলে নিয়ে আগামী বছরের ২২ জানুয়ারি পরবর্তী শুনানীর দিন ধার্য করেছেন।

মঙ্গলবার দায়ের করা মামলায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, হাসপাতালের পরিচালক, দরপত্র কমিটির সদস্যদের, সরকার এবং ঠিকাদার হুমায়ন কবির ও মতিউর রহমানকে বিবাদী করা হয়েছে।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, দরপত্র আহ্বানের পর নির্ধারিত সময়ে দরপত্র জমা দেন। গত ৫ সেপ্টেম্বর সবার সামনে দরপত্র বাক্স খোলার কথা ছিল। সে অনুযায়ী অন্যান্য গ্রুপের দরপত্র বাক্স খোলা হলেও ডি, জি, এইচ ও এফ গ্রুপের দরপত্র খোলা হয়নি। ওই গ্রুপের জমা হওয়া দরপত্রগুলো দু’একদিনের মধ্যে সবার সামনে খোলা হবে বলে পরিচালক জানান। পরিচালকের কথা মতো সরবরাহকারী মো. রাশেদুজ্জামান অপেক্ষায় থাকেন। কিন্তু হঠাৎ করেই তিনি জানতে পারেন দরপত্র বাক্স গোপনে খোলা হয়েছে এবং মেসার্স নুর ট্রেডিং কোং ও মেসার্স মো. মতিউর রহমানকে জি ও এইচ গ্রুপের সরবরাহের কাজ দিয়ে দেওয়া হয়েছে।

বাদীর আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইয়াহিয়া জানান, সব যোগ্যতা থাকার পরেও বেশি দরে অন্যকে কাজটি দেওয়ায় বাদী ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এছাড়া সরকারও লোকসানের মুখে পড়েছে। এ কারণে তারা আদালতের দারস্থ হয়েছেন। এছাড়া আইন অনুযায়ী সিটি করপোরেশনের কোনো প্রতিনিধি এই দরপত্র প্রক্রিয়ায় থাকতে পারেন না। কিন্তু নিয়ম ভঙ করে সিটি করপোরেশনের বিদ্যুৎ বিভাগের একজন প্রকৌশলীকে রাখা হয়েছে।

তবে হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস জানান, তারা এখনও আদালতের কাগজপত্র পাননি। সেটি পেলে বাদী কি অভিযোগ করেছেন, সেটি দেখা যাবে। তবে নিয়ম অনুযায়ী দরপত্র প্রক্রিয়া শেষ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, এর আগে গত ২৮ অক্টোবর পথ্য সরবরাহের দরপত্রে অনিয়মের অভিযোগ এনে আদালতে একটি মামলা করেন মো. সুমন নামের এক ঠিকাদার।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button