রাজশাহী সংবাদ

ডিজিটাল মুখী দেশে পুলিশের পোশাকে কে এই উৎপল

স্টাফ রিপোর্টার ; দেশ যখন ডিজিটাল রুপে রুপান্তিত হতে যাচ্ছে ঠিক সেই সময় পুলিশের কিছু সদস্য লাগামহীন হয়ে পড়েছে, আর তাদের আরেক সদস্য পুলিশের উপ-পরিদর্শক এস আই উৎপল। যার চাকরি জীবনে কতবার বরখাস্ত হয়েছে তার হিসেব নেই, তবুও অলৌকিক কারনে পুর্ন বহাল হন এই পুলিশ সদস্য। নওগাঁর এই সু চতুর পুলিশ সদস্যের অনিয়মের বেড়াজালে পড়ে অনেক নিরহ মানুষ এখনো কারা হাজতে বাস করছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। রাজশাহীতে থাকা কালিন সময়ে পাহাড় সমান অভিযোগে অভিযুক্ত হন এই উৎপল। চারঘাট থানায় থাকাকালীন সময়ে চলতি বছরের ২৮ জানুয়ারী চারঘাটের বাহিরে বাঘা থানা এলাকার মিরগঞ্জ ভালুকর এলাকার এক গরু ব্যবসায়ীর বাড়িতে তার দাবী কৃত অর্থ না পেয়ে তান্ডব চালায় এই এস আই উৎপল এলাকাবাসীর তোপের মুখে সেখান থেকে সটকে পড়লেও বিষয়টি পুলিশের উপর মহলের নজরে আসে -তৎকালিন রাজশাহীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুমিত চৌধুরী তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা মিললে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করে পুলিশ লাইনে নেওয়া হয়। চারঘাট এলাকার সাদিপুরের গরুব্যাবসায়ী মোতালেবের নিকট থেকেও মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ ছিল এই কলংক ধারী পুলিশ সদস্যের উপর। কিছু দিন পরে পুলিশ লাইন থেকে তাকে রাজশাহী জেলা গোয়েন্দা পুলিশে দিলে তিনি সেখান থেকেও চারঘাট নিয়ন্ত্রণ করতেন, পড়ে থাকতেন সারাক্ষন চারঘাটের মাদককের গডফাদারদের বাড়িতে, তিনি নিজেকে ডিবির ওসির পরিচয় দিতেন বলেও অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। ইউসুফপুর এলাকার এক ইউপি সদস্য ও মুক্তারপুরের মফিজ জানান, বড় মাদক ব্যাবসায়ীদের কে তিনি কবজা করে রাখতেন সপ্তাহেই তার দাবী কৃত টাকা বুঝে নিতেন। এ ছাড়াও তিনি প্রতিদিন নিজে দুইটি করে ফেন্সিডিল সেবন করতেন বিষয়টি পুলিশের অনেকেই জানে। গোয়েন্দা পুলিশে থাকাকালীন সময়ে তিনি পুঠিয়ার শ্রমিক নেতা নুরুল হত্যার মুল আসামীদের নিকট থেকে অর্থ নিয়ে নিরহ ব্যক্তিদের আটক করে রাত ভর নির্যাতন শেষে সকালে তার দাবী কৃত অর্থ নিয়ে ছেড়েদেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। এস আই উৎপল এই বছরেই পাবনা সদর থানায় যোগদানের পর থেকেই আবারো শুরু করেছে তার তান্ডব, পাবনা সদর থানার বাংলাবাজার লঞ্চঘাটের ছিদ্দিক জানান, গত সপ্তাহে সন্ধ্যার পর সদর থানার দারোগা উৎপল মাদক সেবি হিসেবে এখান থেকে দুই জনকে আটক করেন পরে কাচারি পাড়ায় নিয়ে ৮০ হাজার টাকা নিয়ে ছেড়েদেন, শাসিয়ে গেছেন কাউকে বললে মাল ঢুকিয়ে শশুর বাড়িদেব।

সদর থানার কালাচাঁদ পাড়ার সোহান অভিযোগ করে বলেন, জুবলিট্যাংকি থেকেও কয়েক দিন আগে সাদা পোশাকে এই উৎপল একজন কে আটক করে ৪৫ হাজার টাকা নিয়ে ছাড়েন। পাবনা সদর থানার সাবেক ওসি ওবাইদুল হক বলেন, তার ব্যাপারে আমার নিকট ও অভিযোগ ছিল। রাজশাহী জেলা পুলিশের একজন উদ্ধর্তন কর্মকর্তা বলেন এস আই উৎপল ও তার স্ত্রী দুই জন পুলিশের সদস্য হওয়ায় সে বেশী বে পরোয়া- তার মত পুলিশরাই আজ দেশের ভাব মুর্তি নষ্ট করছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button