রাজশাহী সংবাদ

ছাত্রীকে যৌনহয়রানি চাঁদাবাজি টর্চারসেল নিয়ন্ত্রণসহ নানা অপকর্মে রাজশাহী পলিটেকনিক: ছাত্রলীগ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
রাজশাহী সরকারি পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের অধ্যক্ষকে লাঞ্ছিতের পর পানিতে ফেলে দেয়ার ঘটনায় ছাত্রলীগের নানা অপকর্ম বের হয়ে আসছে।

অধ্যক্ষকে পানিতে ফেলে দেওয়ার সঙ্গে জড়িতদের বিচার দাবি ও পলিটেকনিক চত্তরে সব ধরনের রাজনীতি নিষিদ্ধসহ ছয় দফা দাবিতে গতকাল সকাল থেকে দিনভর বিক্ষোভ করেছেন প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার্থীরা। এ সময় তাঁরা ক্লাসসহ পরীক্ষাও বর্জন করেন। এতে অচল হয়ে পড়ে পলিটেনিক ইন্সটিটিউট।

গ্রেপ্তারকৃত ছাত্রলীগের ৫ নেতাকর্মীরা হলেন, সিরাজগঞ্জের চৌহালি থানার খাস কাউলিয়া গ্রামের আব্দুল মালেকের ছেলে ও রাজশাহী পলিটিক ছাত্র সোহেল রানা ((২০), নাটোর জেলার, বাগাতিপাড়া এলাকার ফরিদ উদ্দিনের ছেলে ও পলিটেকনিক ছাত্র আরিফুর রহমান আরিফ (২০), নওগাঁ জেলার মান্দা উপজেলার খাজুড়িয়া গ্রামের মৃত আফসার আলীর ছেলে শাফি শাহরিয়ার (২৪), নিলফামারি সদর এলাকার গোলাপের ছেলে ও পলিটেকনিক ছাত্র বাঁধন রায় ও রাজশাহী নগরীর চন্দ্রিমা থানা এলাকার রেজাউল করিমের ছেলে রিপন আলী। গতকাল দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাদের জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। তবে এ মামলার অন্যতম আসামি ও পলিটেনিক ছাত্রলীগের যুগ্ম-সম্পাদক কামাল হোসেন সৌরভসহ অন্য সাতজন পলাতক রয়েছে।

এদিকে এ ঘটনায় কারিগরি শিক্ষা অধিপ্তরের পরিচালক (পিআইডাবিøউ) ও যুগ্ম-সচিব এসএম ফেরদৌস আলমকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন, কারিগরি শিক্ষা অধিপ্তরের কারিককুলাম বিভাগের পরিচালক নুরুল ইসলাম ও রাজশাহী মহিলা পলিটেকনিকের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ওমর ফারুক। কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের যুগ্মসচিব ও পরিচালক (প্রশাসন) মনজুরুল কাদের স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে গতকাল রবিবার গঠিত কমিটিকে তিন কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

অন্যদিকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের দাবি, রাজশাহী সরকারি পলিটেকনিকের সব ধরনের উন্নয়নকাজের টেন্ডার, সুন্দর মেয়েদের যৌনহয়রানি, নবিনবরণসহ নানা অজুহাতে চাঁদাবাজি, পরীক্ষায় পাশ করে দেওয়ার নামেও চাঁদাবাজিতে লিপ্ত ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এছাড়াও তাদের মতের বাইরে কোনো শিক্ষার্থী অবস্থান নিলেই তাকে ১১১৯ নম্বরে কক্ষে ধরে নিয়ে গিয়ে নির্মম নির্যাতন করা হয়। ফলে রাজশাহী পলিটেকনিকে ছাত্রলীগ যেন এক আতঙ্কের নাম।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, শনিবার দুপুরে রাজশাহী পলিটেকনিক অধ্যক্ষ ফরিদ উদ্দিনকে লাঞ্চিতের পর পুকুরের পানিতে ফেলে দেওয়ার প্রতিবাদে গতকাল রবিবার সকাল থেকেই প্রতিষ্ঠানটির প্রধান ফটকের সামনে অবস্থান নিয়ে আন্দোলন করতে থাকেন শিক্ষার্থীরা। এসময় তাঁরা পলিটেকনিক চত্তরে সকল ধরনের রাজনীতি বন্ধ, অধ্যক্ষের ওপর হামলাকারীদের গ্রেপ্তার ও শাস্তি দাবি, চাঁদবাজি বন্ধসহ ছয় দফা দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ করতে থাকেন।

শিক্ষার্থীরা এসময় অভিযোগ করে জানান, এই প্রতিষ্ঠানটিতে এতোদিন ছাত্রলীগ একক রাজত্ব কায়েম করে চলেছে। তাদের ভয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা কেউ মুখ খুলতে সাহস পাইনি। প্রতিষ্ঠানে কোনো নতুন ছাত্রী ভর্তি হলেই ছাত্রলীগ নেতাদের কুনজর পড়ত তার দিকে। ছাত্রলীগ নেতাদের দেওয়া প্রেম প্রস্তাব প্রত্যক্ষণ করা হলেই ওই ছাত্রীকে নানাভাবে হয়রানি করা হতো। আবার যখন, তখন ক্লাসের মধ্যে ঢুকে শিক্ষার্থীদের জোর করে ডেকে নিয়ে এসে মিছিল-মিটিংয়ে অংশ নিতে বাধ্য করা হতো।

এসবের প্রদিবাদ জানালেই ছাত্রদের ১১১৯ নম্বর কক্ষে ধরে নিয়ে টর্চার করা হতো। এসবের আড়ালে থেকে নেতৃত্বে দিয়ে থাকে ছাত্রলীগ পলিটেকনিক শাখার সভাপতি মেহেদী হাসান রিগেন ও সাধার সম্পাদক রাশেদুল ইসলাম। আর সকল অপকর্মে সরাসরি নেতৃত্ব দিয়ে থাকে যুগ্ম-সম্পাদক কামাল হোসেন সৌরভ, ৫ম পর্বের শিক্ষার্থী মুরাদ হোসেন, সাবেক ছাত্র শান্ত ওরফে পাওয়ার, সাবেক ছাত্র বনি, সাবেক ছাত্র হাসিবুল ইসলাম শান্ত, সাবেক ছাত্র সালমান ওরফে টনি, সপ্তম পর্বের ছাত্র হাসিবুল, সাবেক ছাত্র মারুফ, সাবেক ছাত্র আবু সায়খান অন্তু, সচিব, মেহেদী হাসান, ওমর ও সাফিন। এদের মধ্যে বেশিরভাগই স্থানীয় যাদের ছাত্রত্বও নাই অধিকাংশের। এমনকি সভাপতি রিগেন ও সাধারণ সম্পাদক রাশেদুলেরও ছাত্রত্ব নাই। কিন্তু স্থানীয় নেদাদের সঙ্গে হাত করে গত ৩ বছর ধরে এরা এখনো পলিটেকনিক ছাত্রলীগের রাজনীতি ধরে রেখেছেন।

মেকাট্রোনিক্স বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ফারজানা খানম বলেন, এখানে ছাত্রলীগের ভয়ে আমরাও তটস্থ থাকি। তাদের বাইরে কোনো কথা বলার সুযোগ নাই। এখানে তারা টেন্ডার থেকে সবকিছুরই নিয়ন্ত্রণ করে। নতুন শিক্ষার্থীদের নবিনবরণের নামে গত ২০১৬ সাল থেকে তিনবার টাকা উত্তোলন করা হয়েছে। সবমিলিয়ে ৮ লাখ টাকা উত্তোলন হয়েছে। সব টাকা ছাত্রলীগের ছেলেরা আত্মসাত করেছে। কিন্তু কৌশলে শিক্ষকদের দিয়েই ক্লাসে ক্লাসে গিয়ে টাকাগুলো উত্তোলন করা হয়।

আরকে শিক্ষার্থী হাফিজুল ইসলাম বলেন, ‘প্রতিবার পরীক্ষ্ াশেষে ছাত্রলীগের নেতা অন্তু, সৌরভের নেতৃত্বে শিক্ষার্থীদের ধরে ধরে পরীক্ষায় পাশের নামে সাবজেক্ট প্রতি ৪০০-৫০০ টাকা করে আদায় করা হয়। কিন্তু পরে কোনো কাজ হয় না। ওই টাকা তারা মেরে দেয়। কারণ পরীক্ষার ফলাফলে তাদের কোনো হাত থাকে না। তবে ছাত্রলীগের নেতারা পরীক্ষার সময় প্রকাশে কক্ষে প্রবেশ করে নকল সরবরাহ করে আসে। শিক্ষকরা তাদের ভয়ে কিছুই বলতে পারে না।’

আরেক শিক্ষার্থী ফাতেমা খাতুন বলেন, ‘আমার এক বান্ধবীকে পছন্দ করেছিল ছাত্রলীগের এক নেতা। কিন্তু তার প্রেমে সাড়া না দেওয়ায় তাকে নানাভাবে হয়রানি করা হয়েছে। এমনকি বাধ্য হয়ে মেয়েটি এই পলিটেকনিকই ছেড়ে দিয়েছে। আবার পলিটেকনিকের ভিতর দিয়ে যাওয়ার সময়ও নানাভাবে মেয়েদের উত্তোক্ত করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। কিন্তু তাদের ভয়ে কেউ কোনো কথা বলতে পারে না।’

আরেক শিক্ষক্ষ জানান, বছর খানেক আগেও ইংরেজী বিভাগের শিক্ষক নূরুল্লাহকে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা লাঞ্চিত করে পুকুরের মধ্যে ফেলে দিয়েছিল। কিন্তু ওই সময় তাদের ভয়ে কেউ মুখ খোলার সাহস পাইনি বলে বিষয়টি ধামাচাপ পড়ে যায়।

আব্দুস সালাম নামের এক শিক্ষার্থী বলেন, পলিটেকনিকে ভর্তির সুযোগ পাওয়া শিক্ষার্থীরা প্রতিষ্ঠান পরিবর্তনের সুযোগ পাই। কিন্তু রাজশাহী পলিটেকনিকে কেউ ট্রান্সফার হয়ে এলেই তার নিকট থেকে অন্তত ১০ হাজার টাকা চাঁদা আদায় করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। চাঁদা না দিলেই তাকে ক্লাসে ঢুকতে দেওয়া হয় না। এমনকি টর্জার সেলে নিয়ে গিয়ে নির্যাতন করা হয়। আবার শহরের বাইরে থেকে আসা ছাত্রদের নিকট থেকেও নানা অজুহাতে অর্থ আদায় করে ছাত্রলীগ। এভাবে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে রেখেছে তারা। কিন্তু তাদের ভয়ে কেউ মুখ খুলতে পারত না।

প্রসঙ্গত, বছর দুয়েক আগেও রাজশাহী পলিকটেকনিকে ছাত্রলীগের এসব চাঁদাবাজি নিয়ে অনুসন্ধানী খবর প্রকাশ হয়। এরপর প্রশাসন নড়েচড়ে বসলেও পরে আবারো সমানতালে শুরু হয় একই কাজ।

অন্যদিকে রাজশাহী মহানগর পুলিশের মুখপাত্র গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, রাজশাহী পলিকেনিকের অধ্যক্ষ ফরিদ উদ্দিনকে গত শনিবার দুপুরে লাঞ্চিতের পর পুকুরের পানিতে ফেলে দেওয়ার ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় মোট ২৬ জনকে আটক করা হয়। পরে ভিডিও ফুটেজ দেখে ৫ জনকে সনাক্ত করে তাদের মধ্যে ৫ জনকে মামলায় আসামি করা হয়েছে।

এদিকে কয়েকটি সূত্র নিশ্চিত করেছে, অধ্যক্ষ ফরিদ উদ্দিনকে পানিতে ফেলে দেওয়ার ঘটনার সঙ্গে সরাসরি অংশ নেয় অন্তত ১৩ জন নেতাকর্মী। যাদের অধিকাংশই নতুন শিক্ষার্থী। এদের মধ্যে কয়েকজনের মুখে রুমাল দিয়ে বাধা ছিল। আবার অনেকেই নতুন হওয়ায় তাদের সহজে চেনা যায়নি। তবে অধ্যক্ষকে পানিতে ফেলে দিয়ে আসার পরে ছাত্রলীদের ট্রেন্টে দাঁড়িয়ে অন্তত ৪০ জন আনন্দ-উল্লাস করে। এদের মধ্যে ছাত্রলীগের নেতা সৌরভ, অন্তু, সচিব, মেহেদী হাসান, ওমর ও সাফিনসহ স্থানীয় বহিরাগতরাও ছিল। পরে পুলিশ আসার খবরে তারা পালিয়ে যায়।

অন্যদিকে গতকাল দুপুরে পলিটেকনিকে গিয়ে দেখা যায়, শিক্ষার্থীরা তাদের মুল ফটক দখল করে বিক্ষোভ করছে। তাদের এখন অন্যতম দাবি হলো, এই প্রতিষ্ঠানে ছাত্রলীগের রাজনীতি নিষিদ্ধ করা ও অধ্যক্ষের ওপর হামলাকারীদের গ্রেপ্তার করে বিচার করা।

এর আগে গত শনিবার (০২.১১.১৯) অকৃতকার্য শিক্ষার্থী কামাল হোসেন সৌরভকে পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ না দেওয়ার ব্যবস্থা করায় তাকে লাঞ্চিত করে পানিতে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়া হয়। পলিটেকনিক শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি মেহেদী হাসান গ্রুপের নেতা হলো সৌরভ। পরে ওই দিনতেই অধ্যক্ষ বাদী হয়ে সৌরভসহ সাতজনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত আরো ৫০ জনকে আসামি করে নগরীর চন্দ্রিমা থানায় একটি মামলা করেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button