পুঠিয়ারাজশাহী সংবাদ

গ্যাস সঞ্চালন লাইনে ছিদ্র, রাজশাহী নগরীতে গ্যাস সরবরাহ কমেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলায় গ্যাস সঞ্চালন লাইনে ফুটো দিয়ে গত দুই দিন থেকে অনবরত গ্যাস বের হচ্ছে। গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেডের (জিটিসিএল) পক্ষ থেকে সেখানে পাহারা বাসানো হয়েছে। দুর্ঘটনা এড়াতে গ্যাসের চাপ কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। ফলে রাজশাহী নগরীতে গ্যাস সরবরাহ কমেছে।

এদিকে অগ্নি সংযোগের আশঙ্কায় আশেপাশের গাছপালা ও জঙ্গল কেটে পরিষ্কার করা হয়েছে। পুঠিয়া উপজেলার মাড়িয়া গ্রামের ভেতর দিয়ে সিরাজগঞ্জ থেকে এই সঞ্চালন লাইন রাজশাহী শহরে নিয়ে আসা হয়েছে। গত বুধবার মাড়িয়া গ্রামের একজন গৃহবধূ প্রথম এই গ্যাস বের হতে দেখে গ্রামের লোকজনকে জানান।

শনিবার সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে জিটিসিএলের একজন কর্মচারী পাহারায় বসে রয়েছেন। পাশের আমগাছের নিচে দুখানা চেয়ার পাতা রয়েছে। সেখানে বসেই সারারাত সারাদিন ধরে পাহারা দেওয়া হচ্ছে।

মিলন নামে এক ব্যাক্তি বলেন, মাটির ভেতর থেকে গ্যাস বের হচ্ছে এবং তার গন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। জায়গাটায় ধোঁয়া ধোঁয়া মনে হচ্ছে। সেখানে এলাকার আরও লোকজন জড়ো হয়। এলাকার লোকজনের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেওয়া হয়। তারা আসেন। কোম্পানির লোকজনও আসেন।

জিটিসিএল এর একটি সূত্র জানিয়েছে, রাজশাহীতে সঞ্চালন লাইনের পাইপে গ্যাসের চাপ হচ্ছে ১ হাজার পাউন্ড পার স্কয়ার ইঞ্চি (পিএসআই)। যাতে বেশি গ্যাস বের হতে না পারে সে জন্য গ্যাসের চাপ কমিয়ে ১০০ পিএসআই করা হয়েছে। এতে রাজশাহীতে গ্যাসের সরবরাহ কমে গেছে। তবে সেটা খুব বেশি নয়। আগে থেকেই মজুত থাকা গ্যাসের কারণে এখনও প্রভাব বোঝা যাচ্ছে না। কিন্তু আর দু’একদিন এভাবে কম পরিমাণে গ্যাস সরবরাহ হলে নগরীতে রান্নাবান্নায় সমস্যা দেখা দেবে।

ঘটনাস্থলে টিজিসিএলের রাজশাহীর সহকারী ব্যবস্থাপক একেএম আনিসুজ্জামান উপস্থিত হন। কবে নাগাদ এই ফুটো বন্ধ করা যাবে, জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ জন্য ঠিকাদার নিয়োগ করে লাইন মেরামত করা হবে। কবে নাগাদ সেটি হবে তিনি বলতে পারেননি। তবে তিনি বলেন, চাপ কমিয়ে দেওয়ার কারণে আর গ্যাস প্রায় বের হচ্ছে না। এটা থেকে আর বিপদের কোনো আশঙ্কা নেই। তারপরেও তাদের কোম্পানির পক্ষ থেকে রাতদিন জায়গাটি পাহারা দেওয়া হচ্ছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button