পবারাজশাহী সংবাদ

কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি রাজশাহীর পবা উপজেলা সরকারি কোয়ার্টারে ভাড়া না দিয়ে থাকার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক : ২৫ বছর যাবত সরকারি কোয়ার্টারে থেকেও বাড়ি ভাড়া দেন না বলে অভিযোগ রাজশাহীর পবা উপজেলার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে।

রাজশাহীর পবা উপজেলায় উপজেলা প্রশাসনের সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বছরের পর বছর সরকারি বাসায় থাকলেও তাদেরকে ভাড়া দিতে হয় না।

উপজেলা চত্তরে অবস্থিত প্রথম শ্রেণী থেকে তৃতীয় শ্রেণীর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য বসবাসের জন্য থাকা এসব ভবনে গত ২০ থেকে ২৫ বছর ধরে বসবাস করে আসছেন এমনো অভিযোগ আছে কারো কারো বিরুদ্ধে। আবার কারও কারও উপজেলা সংলগ্ন নিজ বাসভবন হওয়ার পরেও নিজ বাসা ভাড়া দিয়ে ফ্রি থাকেন এই সরকারী বাসভবনে। ইমাম মো: গোলাম মাওলার নিজ বাসা উপজেলা সংলগ্ন, আবার তার জন্য মসজিদের ২য় তলায় আবাসন ব্যাবস্থা থাকা সত্তেও তিনিও থাকেন সরকারি কোয়ার্টারে। একই কাদায় থাকেন আরো কয়এক জন।

অনেকে ভবনটির বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করলেও অন্যান্য বিল ও সংস্কারের অর্থ ব্যয় করা হচ্ছে সরকারি কোষাগার থেক্।ে বরাদ্দ ছাড়াই দীর্ঘ দিন থেকে এই সব কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সরকারী কোয়ার্টারে বসবাস করার ঘটনায় প্রশাসনের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।এই উপজেলাতে ফ্রি রাখতে আছে একটি সিন্ডিকেট, প্রত্যেক মাসে সে সিন্ডিকেটকে বেতন স্কেলের ২০% মাসুহারা দিতে হয় প্রত্যেককে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক কর্মকর্তা এ তথ্য জানান।

জানা যায়, ১৯৮৩ সালের ১১ নভেম্বর পবাকে থানা হতে উপজেলায় উন্নীত করা হয়। রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন সংলগ্ন একটি উপজেলা, সিটি কর্পোরেশনের চারিদিক ঘিরেই পবা উপজেলার অবস্থান হওয়ায় কেউ এখানে পোষ্টিং পেলে আর যেতে চায়না এখান থেকে। সরকারী অর্থায়নে উপজেলা পরিষদের ভিতরে আবাসিক ভবন গুলি নির্মাণ করা হয়।

বরাদ্দ না নিয়ে সরকারি কোয়ার্টারে থাকা গত প্রায় ২০ বছর ধরে আছেন পরিবার পরিকল্পনার অফিস সহায়ক মো: আফজাল হোসেন ও ইএনও অফিসের গাড়ীচালক মো: রবিউল ইসলাম। এলজিডি অফিসের কার্য সহকারী মো: আরিফুল ইসলাম আছেন ১৫ বছর ধরে, প্রসেস সার্ভার মো: আব্দুল হান্নান আছেন ৭ বছর ধরে, প্রসেস সার্ভার মো: আবুল হাসান আছেন ৬ বছর ধরে, পিআইও অফিসের অফিস সহায়ক মো: দশরত আছেন ২ বছর ধরে. ভূমি অফিসের অফিস সহায়ক মো: রিপন আছেন ২ বছর ধরে, উপজেলা চেয়ারম্যানের অফিস সহায়ক মো: আরিফুল ইসলাম আছেন দেড় বছর ধরে, কৃষি অফিসের অস্থায়ী গাড়ী চালক মো: রিপন আছেন প্রায় ২৫ বছর ধরে, উপজেলা নির্বাচন অফিসের অফিস সহায়ক মো: নুরুল ইসলাম আছেন ২৫ বছর ধরে, ইএনও অফিসের নিরাপত্তা প্রহরী মো: মিঠু আছেন আড়াই বছর ধরে, অফিস সহায়ক মোঃ আবুসায়েদ ১ বছর ধরে , ইএনও অফিসের অফিস সহায়ক শুভ এসেছেন চার মাস আগে। কৃষি অফিসের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আবুল হোসেন ও তার স্ত্রী শারমিন সুলতানা থাকেন ২ বছর যাবত।

একাধিক কর্মকর্তা অভিযোগ করে বলেন, উপজেলা পরিষদের আবাসিক ভবনগুলো দেখ ভাল ও বরাদ্দ উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয় থেকে হয়ে থাকে। কর্তৃপক্ষের অবহেলার জন্য বাসা বরাদ্দে অনিয়মের ঘটনা ঘটছে।

উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, শুধু উপজেলা নির্বাহী অফিসার নামে বাসা বরাদ্দ রয়েছে। বাকী কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা আবাসিক ভবনগুলিতে বসবাস করলেও তাদের নামে কোন বাসা বরাদ্দ নেই।

ভাড়া না দিয়ে সরকারি বাসায় থাকা- এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শাহদত হোসেন বলেন, আমি সবে যোগদান করেছি। তাই এ বিষয়গুলো অবগত নই। তবে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হবে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button