রাজশাহী সংবাদ

কৃষকের ১৫ টাকার ফুলকপি বাজারে ৬০

ফরিদ আহমেদ আবির:
বেশ কিছু দিন ধরেই রাজশাহীর বাজারে শীতকালীন শাকসবজি আসতে শুরু করেছে। তবে সবজির দাম অত্যন্ত চড়া। কিন্তু কৃষকদের কাছ থেকে খুব অল্প দামেই এসব সবজি কিনছে ফড়িয়ারা।

জানা গেছে, রাজশাহী জেলার পুঠিয়া উপজেলার বানেশ্বর,শিবপুর,ঝলমলিয়া ও
দুর্গাপুর উপজেলার কানপাড়া, কিশোরপুর, বাগমারার,তাহেরপুর, ভবানীগঞ্জ সহ আরও বেশ কয়েকটি এলাকায় ফসলের ক্ষেতে সারা বছরই সবজির চাষ করা হয়।

শনিবার (৭ ডিসেম্বর) সকালে বানেশ্বর বাজার
ঘুরে দেখা গেছে, প্রতি কেজি নতুন আলু ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে, আর পুরাতন আলু বিক্রি হচ্ছে ৩২ থেকে ৩৫ টাকা কেজি দরে। বেগুন ৬০ টাকা কেজি, পটল ৪০ থেকে ৫০ টাকা, করলা ৫০ থেকে ৬০ টাকা, কাঁকরোল ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। গত সপ্তাহের চেয়ে প্রতিটি সবজিতে ১০-১৫ টাকা বেড়েছে।

চীন থেকে আনা পেঁয়াজ ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা, মিশর থেকে আনা একটু ভালো মানের পেঁয়াজ ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। দেশি পেঁয়াজের দাম ২২০ টাকার উপরে। পেঁয়াজের পাতার দাম ২০০ টাকার উপর।

এদিকে সপ্তাহ খানেকের ব্যবধানে বেড়েছে ভোজ্য তেল ও চালের দামও। সয়াবিন তেলের দাম কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। ৮০ থেকে ৮২ টাকা কেজি দরের সয়াবিন তেলের দাম এখন ৯০ থেকে ৯৫ টাকায় এসে ঠেকেছে। চালের বাজার দর অনেকটাই বেড়ে গেছে। ৩৮ থেকে ৪০ টাকা কেজি দরের সরু চাল এখন ৪২ থেকে ৪৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার বানেশ্বর ইউনিয়নের শিবপুর গ্রামের বিলের কৃষক হামিদুর রহমান জানান, তারা ক্ষেত থেকে প্রতি কেজি ফুলকপি, পাতা কপি পাইকারি ১৫ থেকে ২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করলেও খুচরা বাজারে তা ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করা হচ্ছে।

মনির উদ্দীন নামে এক ক্রেতা জানান, বাজারে পর্যাপ্ত শীতকালীন সবজি রয়েছে। এরপরও দাম বেশি।

পুঠিয়া উপজেলার স্যানিটেশন ইন্সপেক্টর ও নিরাপদ খাদ্য পরিদর্শক মোঃ হাফিজুর রহমান হাফিজ ‘সংবাদ চলমান’ কে বলেন, নিয়মিত বাজার মনিটরিং করা হচ্ছে। তারপরও কিছু অসাধু ফড়িয়ারা সংঘবদ্ধ একটি সিন্ডিকেটের সঙ্গে যোগসাজশ করে দাম বাড়িয়ে দিচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযান চলমান রয়েছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button