রাজশাহী সংবাদ

ঐতিহ্যের রাজশাহী কলেজে শেষ হলো তিন প্রজন্মের প্রাণের মেলা

নিজস্ব প্রতিবেদক  : জমজমাট আয়োজনের পর দিনভর স্মৃতিচারণ ও রাতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও সবশেষে আতশবাজির মধ্য দিয়ে শেষ হলো ঐতিহ্যের রাজশাহী কলেজে দেশের প্রথমবারের মতো আয়োজিত এইচএসসি এ্যালামনাই।

শনিবার সকাল থেকে কুয়াশাচ্ছন্ন অথচ আলো ঝলমলে রাতে ব্যান্ড তারকা জেমসের ঝাকানাকা গানে মুখরের পর আগামীর স্বপ্ন রোমন্থনের মধ্য দিয়ে রাজশাহী কলেজে ভাঙল নবীন প্রবীণের দুই দিনের মিলনোৎসব।

পৌষের দুপুরে ঝলমলে রোদের কিরণে আরও মনোমুগ্ধ হয়ে ওঠে রাজশাহী কলেজ প্রাঙ্গণ। দ্বিতীয় দিনেও শীতের এমন সকালে হাজারো বন্ধুর সমাগম। দলে দলে এখানে-ওখানে হাসি, আড্ডা, গল্প, সেলফি- আরও কত কী! বহুদিন পর চেনা স্থানে প্রিয় বন্ধুকে কাছে পেয়ে আবেগে আপ্লুত অনেকেই। তাদের কেউ যুবক, কেউ মধ্যবয়সী, কেউবা প্রবীণ।

পদ্মাপাড়ে রাজশাহী কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ১৮৭৩ সালে। মাঝে শুধু ১৫ বছর এইচএসসি পাঠ বন্ধ ছিল। ২০১০-১১ শিক্ষাবর্ষ থেকে কলেজটিতে আবার এইচএসসি শিক্ষার্থী ভর্তি নেয়া হচ্ছে। প্রাক্তন সব শিক্ষার্থীই পেয়েছেন এ্যালামনাইয়ে অংশ নেয়ার সুযোগ। দেশে এবারই প্রথম কোন কলেজে এইচএসসি পর্যায়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের এ্যালামনাই অনুষ্ঠিত হলো। এতে অংশ নেয় তিন প্রজন্মের ৯ হাজার প্রাক্তন শিক্ষার্থী।

গত শুক্রবার উদ্বোধনের আগে বৃহস্পতিবার রাতেই উৎসব শুরু হয় ক্যাম্পাসে। গত বৃহস্পতিবার বিকেলের পর থেকেই কলেজে আসতে শুরু করেন দেশ-বিদেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা সাবেক শিক্ষার্থীরা। কেউ যান স্ত্রীকে নিয়ে, কেউ স্বামীকে, কেউ সন্তান এবং কেউ নাতি-নাতনিদের নিয়ে। কলেজে গিয়ে মেতে ওঠেন কলেজ জীবনের বন্ধুদের সঙ্গে। কলেজের অপরূপ সাজসজ্জা দেখতে যান সাধারণ মানুষও। তবে শুক্রবার সকাল থেকে উৎসবে মেতেছেন শুধু সাবেক শিক্ষার্থীরা।

শনিবার দুপুরে কলেজ ক্যাম্পাসে গিয়ে দেখা মেলে ১৯৫৮ সালে রাজশাহী কলেজের উচ্চ মাধ্যমিকের (এইচএসসি) শিক্ষার্থী শহিদুল ইসলাম চৌধুরী’র সাথে। তিনিও যোগ দিয়েছেন মিলন মেলায়।

তার মতে, এমন অপরূপ সাজে তিনি এই কলেজকে আগে কখনও দেখেন নি। এছাড়াও কলেজের বর্তমান সৌন্দর্যে মুগ্ধ তিনি। তিনি কলেজের সৌন্দর্য সম্পর্কে বলেন, ‘আল্ট্রা মডার্ণ, অতি সুন্দর’। ছেলে ও পুত্রবধুর সঙ্গে এই মিলনমেলায় অংশ নিয়েছেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার হিসেবে কর্মজীবন শেষ করা এই অ্যালামনাস।

১৯৮০ ব্যাচের শিক্ষার্থী আহসান কবীরের সাথে। আর আহসান কবীরের মেয়ে মৌসুমি কবীর ২০১৩ ব্যাচের প্রাক্তন শিক্ষার্থী। সবাই এসেছেন এ্যালামনাই অনুষ্ঠানে। আহসান কবীর বলেন, আমরা তিন প্রজন্মই এসেছি। এর অনুভূতি যে কত ভাল তা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। কৃতজ্ঞতার সঙ্গে আয়োজকদের ধন্যবাদ জানাই।

বিশিষ্ট পরমাণু বিজ্ঞানী ড. ওয়াজেদ মিয়া, ইতিহাসবিদ যদুনাথ সরকার, কবি রজনীকান্ত সেন, চলচ্চিত্রকার ঋত্বিক ঘটক, ভারতীয় রাজনীতির পুরোধা জ্যেতি বসু, বিচারপতি হাবিবুর রহমানও রাজশাহী কলেজের ছাত্র।

বর্তমানে জাতীয় সংসদে এই কলেজ থেকে পাস করা মন্ত্রী আছেন, হুইপ আছেন, আটজন সংসদ সদস্য আছেন। নির্বাচন কমিশনার এই কলেজের শিক্ষার্থী। ১৪৭ বছরের ইতিহাসে রাজশাহী কলেজ অসংখ্য গুণীজন তৈরি করেছে। দেশ-বিদেশে তারা নেতৃত্ব দিচ্ছে।

প্রায় সাতাশ হাজার শিক্ষার্থীর পদচারণায় মুখর ক্যাম্পাসটিতে ২৪ টি বিভাগে স্নাতক সম্মান, স্নাতকোত্তর, ডিগ্রি ও এইচ.এস.সি শিক্ষার্থীদের শিক্ষাদান করা হয়। বর্তমানে কলেজে ২৬০ জন কর্মঠ শিক্ষক কর্মরত আছেন। আধুনিক প্রযুক্তির যুগে পিছিয়ে নেই রাজশাহী কলেজ। কলেজের নিরাপত্তার স্বার্থে গুরুত্বপূর্ণ স্থানসমূহে স্থাপন করা হয়েছে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা। প্রতিটি বিভাগে চালু করা হয়েছে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম। শিক্ষকদের জন্য সরবরাহ করা হয়েছে প্রয়োজনীয় ল্যাপটপ। প্রতিটি বিভাগে রয়েছে সুদৃশ্য কম্পিউটার ল্যাব। ক্লাসের শিক্ষার্থীদের বহির্বিশ্বের সাথে সর্বদা যোগাযোগ রাখার জন্য ব্যবস্থা করা হয়েছে ফ্রি ওয়াই-ফাই সেবা। রয়েছে শেখ রাসেল ডিজিটাল কম্পিউটার ল্যাব।

উৎসবের শেষ দিনে কলেজের উন্নয়ন ও আগামী দিনের স্বপ্ন নিয়ে আলোচনায় আরও অনেক গুণীজন এই কলেজ থেকে তৈরি হবে আশা প্রকাশ করেন অতিথিরা। পর পর তিনবার র‌্যাংকিংয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের দেশসেরা হয়েছে রাজশাহী কলেজ।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো পড়ুন
Close
Back to top button