রাজশাহী সংবাদ

বিএনপির হামলার শঙ্কায় ভোটার আসেনি: রাজশাহীতে তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: সদ্য অনুষ্ঠিত ঢাকা সিটি নির্বাচনে উল্লেখযোগ্য হারে ভোটারের অনুপস্থিতির কারণ জানাতে গিয়ে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘বিএনপির লোকজন হামলা করবে, এমন আশঙ্কা থেকেই কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি কম ছিল।’

ভোটার সংখ্যা কম হলেও উপমহাদেশের মানদণ্ডে ঢাকা সিটি নির্বাচনে সবচেয়ে ভালো ভোট হয়েছে বলে জানান তিনি। বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজশাহী শিল্পকলা একাডেমিতে অনুষ্ঠিত রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি সভায় এসব কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ঢাকা সিটি নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিএনপি বলেছে, এটি আন্দোলনের অংশ। এখন বিএনপির আন্দোলন মানে মানুষ মনে করে জ্বালাও-পোড়াও, অগ্নিসংযোগ খুন। বিএনপির এই সহিংসতার আশঙ্কায় মানুষ ভোটকেন্দ্রে যায়নি।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ঢাকা সিটি নির্বাচন নিয়ে নানারকম বিচার-বিশ্লেষণ চলছে। আমি মনে করি উপমহাদেশের মানদণ্ডে এটি সবচেয়ে ভালো নির্বাচন।’

এর কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘ভোটকেন্দ্রে কোনো হাঙামা হয়নি। অবৈধভাবে কোনো সিল মারার ঘটনা ঘটেনি। ইভিএমে ভোট গ্রহণ করার কারণে কোনো বিশৃঙ্খলা হয়নি। এ জন্য জালভোটও পড়েনি। কারণ ইভিএমে একজনের ভোট অন্যজনের দেয়ার সুযোগ নেই।’

তিনি যোগ করেন, ‘ইভিএম নিজেই প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দলের একজন এজেন্ট হিসেবে কাজ করে। আঙুলের ছাপ নিয়ে সমস্যার কারণে খোদ প্রধান নির্বাচন কমিশনার ভোট দিতে গিয়ে বিড়ম্বনায় পড়েছেন।’

ইভিএম প্রশ্নে বিএনপি অভিযোগ বিষয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘ইভিএম নিয়ে বিএনপি নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে। আসলে বিএনপি প্রযুক্তিকে সব সময় ভয় পায়।’

উদারহণ দিতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালে বিনামূল্যে বাংলাদেশে সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগের সুযোগ এসেছিল। বাংলাদেশের সব গোপন তথ্য বাইরে চলে যাবে অযুহাতে তখনকার প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া সাব-মেরিন ক্যাবলে বাংলাদেশকে যুক্ত করেননি। পরে বিপুল রাষ্ট্রীয় অর্থ ব্যয় করে সাবমেরিন ক্যাবলের সঙ্গে যুক্ত হতে হয়েছে আমাদের।’

সভায় আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়নের আহ্বানন জানান দলের রাজশাহী বিভাগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মেরাজ উদ্দিন মোল্লার সভাপতিত্বে সভা পরিচালনা করেন জেলার সাধারণ সম্পাদক আবদুল ওয়াদুদ দারা।

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের নব নির্বাচিত কমিটির এটি প্রথম প্রতিনিধি সভা। সভায় জেলা নেতৃবৃন্দ ও তৃণমূলের কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিনিধি সভায় আরো বক্তব্য রাখেন – আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য নুরুল ইসলাম ঠাণ্ডু, বেগম আখতার জাহান, ডা. মেরিনা জাহান কবিতা, এমপি আয়েন উদ্দিন এমপি, ডা. মুনসুর রহমান এমপি, ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক এমপি ও সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি আদিবা আনজুম মিতা।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button