দূর্গাপুররাজশাহী সংবাদ

উপজেলায় বেড়েছে ৫শত ১০ হেক্টর জমিতে পাট চাষ দুর্গাপুরে কৃষক মুখে হাসি

পাটের দাম বাড়তি

এস এম শাহাজামাল,দুর্গাপুর : দুর্গাপুর উপজেলায় এবার পাটের দাম নিয়ে কৃষক মহাখুশি। দীর্ঘদিন কাংক্ষিত দাম না পেয়ে হতাশ হলেও কৃষকের মুখে এবার হাসি ফিরেছে। এখন মণপ্রতি সর্বোচ্চ ২ হাজার ১শত টাকারও বেশি দামে পাট বিক্রি হচ্ছে। এ মৌসুমে এটাই পাটের সর্বোচ্চ দাম। বাজারে নতুন পাট বিক্রির শুরুতেই বাড়তি দামের সোনালি স্বপ্ন দেখছেন দুর্গাপুরের পাট চাষিরা। শুধু তাই নয়, এ বছর দুর্গাপুর উপজেলায় পাটের আবাদও এক লাফে প্রায় এক শত হেক্টর বেড়ে গেছে। শতকরা হিসাবে পাটের আবাদ বেড়েছে প্রায় ১০ শতাংশ। অতীতে পাট আবাদের ক্ষেত্রে এত বড় উৎপাদন আর দেখা যায়নি। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এ বছর পাটের ফলনও হয়েছে বাম্পার। এতে পাটের উৎপাদনও বেড়ে যাওয়ার আশা করা হচ্ছে। বাম্পার ফলন আর ভাল দাম পাওয়ায় এবার পাট কাটা, জাগ দেয়া, আঁশ ছাড়ানো, শুকানো এবং বিক্রির কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষক। তবে পাট জাগ দেওয়া নিয়ে কিছুটা বিপাকে থাকলেও বড় ধরনের লোকসান হয়নি দুর্গাপুরের পাট চাষিদের। সূত্র মতে, গত কয়েক বছর পাটের কাংক্ষিত দাম না পেলেও এবার দাম পেয়ে কৃষক খুশি। কৃষক পর্যায়ে প্রতিমণ পাট গতবার মৌসুমের শুরুতে বিক্রি হয়েছিল ১ হাজার ৪৫০ থেকে ১ হাজার ৫শত টাকায়। কিন্তু এবার শুরু থেকে কৃষক পাটের দাম পাচ্ছে ১৮শ’ থেকে ২ হাজার ১শত টাকা। দুর্গাপুর উপজেলাসহ আশেপাশের হাট-বাজারগুলোতে আশানুরুপ পাট উঠছে। কৃষকরা পাটের দাম ভালো পাওয়ায় মহাখুশিতে পাট কেনাবেচা করছেন। দুর্গাপুর সহ আশেপাশের পাট বাজার যেন কৃষকের মহা উৎসবের বাজার হয়ে গেছে। এদিকে, পাট বাজারে কৃষককে পাটের ন্যায্যমূল্য দিতে ও পাট ক্রয়ে অনিয়ম-দুর্নীতি কমাতে চলতি মৌসুম থেকে মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে পাট কিনবে বলে জানিয়েছে বিজেএমসি। শুধু তাই নয়, কৃষককে পাট বিক্রির অর্থও পরিশোধ করা হবে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে। সেজন্য পাটচাষীদের জন্য একটি ডাটাবেজও তৈরি করা হয়েছে। চলতি মৌসুমে পাইলট প্রকল্প হিসেবে পাট ক্রয় করা হচ্ছে। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের হিসাব অনুযায়ী, উপজেলায় চলতি পাট মৌসুমে ১হাজার হেক্টক জমিতে পাট আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। প্রকৃতপক্ষে আবাদ হয়েছে ১৫শত ১০হেক্টর জমিতে। এবছর অতিরিক্ত ৫শত ১০ হেক্টর জমিতে পাট আবাদ বেশি হয়েছে।

ফলে এ বছর পাটের আবাদে উৎপাদনও বেশি বলে আশা করা হচ্ছে।গতবছর এ উপজেলায় ১৪শত ৬০ হেক্টর জমিতে পাট আবাদ হয়েছিল। দুর্গাপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মসিউর রহমান বলছেন, বর্তমান সরকার দেশে পাটের উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। এরমধ্যে পাটের উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের আওতায় ‘উচ্চ ফলনশীল (উফশী) পাট ও পাটবীজ উৎপাদন এবং উন্নত পাট পচন’ শীর্ষক গ্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। দেশের পাট উৎপাদনকারী ৪৪ জেলার ২শ’ উপজেলাকে এই প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।উপজেলায় প্রকল্পের আওতায় প্রতিবছর পাট উৎপাদনের জন্য ৩শত এবং পাটবীজ উৎপাদনের জন্য ২০জন মোট এ উপজেলায় সাড়ে ৩শত জন চাষীকে বিনামূল্যে ভিত্তি ও প্রত্যায়িত পাটবীজ, রাসায়নিক সার, কীটনাশক, হ্যান্ড স্প্রেয়ারসহ প্রতিবছর ৫০জন চাষীকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হচ্ছে। সনাতন পদ্ধতিতে পাটের একরপ্রতি ফলন ছিল ১৮-২০ মণ। বর্তমানে প্রকল্প এলাকায় আধুনিক প্রযুক্তি এবং উচ্চ ফলনশীল পাটবীজ ব্যবহার করায় পাটের একরপ্রতি ফলন ২০-২৫ মণে উন্নীত হয়েছে। এছাড়াও গত ৫ বছরে পাটজাতীয় ফসল অর্থাৎ কেনাফ, মেস্তার ৫ জাত উদ্ভাবন করা হয়েছে। যান্ত্রিক রিবনার আধুনিকায়ন করা হয়েছে। এদিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিটন সরকার বলেন, উপজেলা কৃষি কর্মকতার ও পাট কর্মকর্তার স যোগিতা নিয়ে উপজেলায় পাট চাষ থেকে কৃষকের পাশে রয়েছে সরকারি সহযোগিতা। এমন কি পাট বাজারে উটার শুরু থেকে উপজেলা প্রসাশন পাট বাজার মনিটরিং জোরদার করেছেন। এতে কৃষকরা পাটের দাম নিয়ে ফুড়িয়া ব্যবসায়ীদের কাছে আর প্রতারিত হচ্ছে না। এবং দাম ভালো পাচ্ছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button