দূর্গাপুররাজশাহী সংবাদ

ইউএনও-এসিল্যান্ড ছাড়াই চলছে দুর্গাপুর উপজেলা, স্থবির কার্যক্রম

ইউএনও-এসিল্যান্ড ছাড়াই চলছে দুর্গাপুর উপজেলা, স্থবির কার্যক্রম

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলায় প্রায় ৯ মাস ধরে শূন্য সহকারী ভূমি কমিশনারের (এসিল্যান্ড) পদ। অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তার স্বাক্ষর নিয়ে কোনো মতে রুটিন কাজ চালিয়ে নেওয়া হচ্ছে। এর মধ্যে গত ৪ সেপ্টেম্বর বদলি করা হয়েছে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) লিটন সরকারকেও। ফলে ইউএনও ও এসিল্যান্ড ছাড়াই চলছে উপজেলা কার্যক্রম। উপজেলা পর্যায়ে শীর্ষ দুই প্রশাসনিক কর্মকর্তার অভাবে জনগুরুত্বপূর্ণ কার্যক্রমে সৃষ্টি হয়েছে স্থবিরতা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দুর্গাপুর উপজেলায় সবশেষ সহকারী ভূমি কমিশনার (এসিল্যান্ড) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন সমর কুমার পাল। গত ১ জানুয়ারি তাকে রাজশাহী সিটি করপোরেশনে বদলি করা হয়। প্রায় ৯ মাস পার হলেও এখনো উপজেলায় এসিল্যান্ড পদে কাউকে পদায়ন করা হয়নি। ফলে জমি-জমা সংক্রান্ত কাজে দীর্ঘদিনের ফাইল আটকে রয়েছে। ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে উপজেলাবাসীদের।

অপরদিকে, গত ৪ সেপ্টেম্বর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) লিটন কুমারকে নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলায় ইউএনও হিসেবে বদলি করা হয়েছে। ফলে শূন্য হয়ে পড়ে ইউএনও পদটিও।

উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা জানান, এসিল্যান্ড না থাকায় অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে ইউএনও ওই পদের কাজগুলোও দেখাশোনা করছিলেন। ইউএনও বদলির পর ব্যাপক শূন্যতা সৃষ্টি হয়। জেলা প্রশাসকের আদেশে পার্শ্ববর্তী চারঘাট উপজেলার ইউএনও এখন দুর্গাপুরের ইউএনও ও এসিল্যান্ডের কাজ দেখাশোনার দায়িত্ব পেয়েছেন। তবে তিনি নিজ উপজেলার কাজ শেষ করে সময় পেলে দুর্গাপুরের খোঁজ নেন। নতুবা নেন না। কারও জরুরি কাজে ইউএনও কিংবা এসিল্যান্ডের স্বাক্ষর প্রয়োজন হলে দুর্গাপুর থেকে চারঘাটে যেতে হয়।

বৃহস্পতিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) জমির নামজারি করতে আসা কয়েকজন ভুক্তভোগী অভিযোগ করেন, ‘তারা দীর্ঘ দিন ধরে ঘুরছেন। কিন্তু জমির নামজারির কাজ করাতে পারছেন না।’ আব্দুল আওয়াল নামে এক ব্যক্তি বলেন, ‘ভূমি অফিসে গত দুই মাস ধরে জমির নামজারির কাজের জন্য যাতায়াত করতে করতে জুতার তলা ক্ষয় হওয়ার উপক্রম হয়েছে। কিন্তু এসিল্যান্ড নেই, তাই নামজারি হচ্ছে না।’

জানতে চাইলে রাজশাহী জেলা প্রশাসক হামিদুল হক বলেন, ‘আমি বিষয়টি অবগত। সাময়িক একটা শূন্যতার সৃষ্টি হয়েছে এটা জানি। তবে আপাতত উপজেলায় এসিল্যান্ড পাওয়ার সম্ভাবনা নেই। কারণ এসিল্যান্ড সংকট রয়েছে। নতুন ইউএনও যোগ দিলে তিনি অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে এসিল্যান্ডের দায়িত্বভারও দেখাশোনা করবেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button