সারাদেশ

থানায় আসামির মৃত্যু, সংঘর্ষে পুলিশসহ আহত ২৫

সংবাদ চলমান ডেস্ক: রংপুরের পীরগঞ্জে গ্রামবাসীর সঙ্গে পুলিশের দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে কমপক্ষে ১৫ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

জানা গেছে, এক ব্যক্তিকে আটকের কয়েক ঘণ্টা পর পীরগঞ্জ উপজেলার ভেন্ডাবাড়ি পুলিশ ফাঁড়িতে তার মৃত্যু হয়। এ নিয়ে এলাকাবাসীর সঙ্গে সংঘর্ষের সূত্রপাত।

গ্রামবাসীর অভিযোগ, পুলিশ ফাঁড়িতে আটক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। কিন্তু পুলিশ বলছেন, আটক ব্যক্তি গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

জানা যায়, কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষ বেধে যায়। পরিস্থিতি সামাল দিতে পুলিশ রাবার বুলেট ও গুলি চালায়। এতে ১৫ জন গুলিবিদ্ধসহ ২৫ জন আহত হয়েছেন।

পুলিশ দাবি করেছেন, আহতদের মধ্যে এএসপিসহ আট পুলিশ সদস্য রয়েছেন।

বুধবার (১৬ অক্টোবর) সকাল পৌনের ৯টার দিকে ভেণ্ডাবাড়ি পুলিশ তদন্তকেন্দ্রে আসামির মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে বিক্ষোভে নামেন গ্রামবাসী। নিহত শামসুল হক (৫৫) পীরগঞ্জের শান্তিপুর মির্জাপুর এলাকার মৃত মফিজউদিনের ছেলে।

রংপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মারুফ জানান, শামসুল হককে চোলাইমদসহ মঙ্গলবার রাতে গ্রেপ্তার করা হয়। বুধবার সকাল পৌনের ৯টার দিকে হাজতের জানালার গ্রিলের সঙ্গে গায়ের ফতুয়া দিয়ে তার ফাঁস দেয়া মরদেহ দেখা যায়।

এ খবর ছড়িয়ে পড়লে গ্রামবাসী থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ শুরু করেন। এ সময় পরিস্থিতি সামাল দিতে পুলিশ রাবার বুলেট ও গুলি করে। এতে ১৫ জন গুলিবিদ্ধসহ ২৫ জন আহত হয়েছেন।

পীরগঞ্জ থানার ওসি সরেস চন্দ্র বলেন, শামসুল ইসলাম তার পরনের ফতুয়া দিয়ে গ্রিলের সঙ্গে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। কিন্তু গ্রামবাসী পুলিশের বিরুদ্ধে শামসুল ইসলামকে পিটিয়ে মারার অভিযোগ তুলে থানা ঘেরাও করেছিলেন। ওই সময় গ্রামবাসীকে ছত্রভঙ্গ করতে রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাস ছোড়া হয়।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button