সারাদেশ

জন্ম থেকে অন্ধ মিজানুরের জীবনগাঁথা

কুড়িগ্রাম সংবাদদাতা: মিজানুর রহমান, বয়স ২৫ বছর। জন্ম থেকে তার দুই চোখ অন্ধ। কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারী উপজেলার বন্দবেড় ইউনিয়নের প্রত্যন্ত অঞ্চল টাঙ্গারিপাড়া গ্রামের তার জন্ম। বাবা মোনতাজ আলী, মা মোমেনা খাতুন। দুই ভাই বোনের মধ্যে মিজানুর বড়। ছোট বোনের বিয়ে হয়ে গেছে। আত্মবিশ্বাস ও প্রবল স্মরণশক্তির মাধ্যমে জন্মান্ধ মিজানুর মোবাইলে টাকা রিচার্জ, মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে টাকা লেনদেন করে জীবিকা চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রায় পাঁচ হাজার জনের ফোন নম্বর মুখস্থ মিজানুরের। মোবাইল রিচার্জ করতে গেলে নম্বর না বলে ব্যক্তির নাম বললেই টাকা চলে যাচ্ছে গ্রাহকের মোবাইলে ফোনে।

ইচ্ছা থাকলেও পড়ালেখা চালিয়ে যেতে পারেনি মিজানুর। বাধ্য হয়েই টাকা উপার্জনের পথে নামেন। শুরুর দিকটা মোটেই সুখকর ছিল না। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তিনি করে দেখিয়েছেন। মোবাইল ফোনে রিচার্জ করেই তিনি সংসারের আর্থিক অনটন ঘুচিয়েছেন। দীর্ঘ দিন ধরে এ কাজ করলেও একবারও ভুল করেনি। পুরো দিনের হিসাব মুখস্থ রাখতে পারেন মিজানুর।

চোখ দিয়ে দেখতে না পেলেও টাকা লেনদেন কিভাবে করেন জানতে চাইলে মিজানুর বলেন, মোবাইল সেট ব্যবহার করতে করতে আমার সব জানা হয়ে গেছে। রিচার্জ করতে কোন বাটন চাপতে হবে, কোন অপশনে যেতে হবে-সেটাও আমার জানা হয়ে গেছে। মোবাইল ব্যাংকিংয়ের ক্ষেত্রেও অসুবিধা হয়না। শুধু ইনকামিংয়ের ক্ষেত্রে আমাকে সংশ্লিষ্ট কোম্পানি হট লাইনে কথা বলে অথবা অন্যের সহযোগিতা নিতে হয়। টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে পারছিনা। সরকার সহযোগিতা করলে পৃথিবীর আলো দেখতে ও বৃদ্ধ মা-বাবার দেখাশোনা ভালো ভাবে করতে পারবো।

জন্ম থেকে অন্ধ মিজানুরের জীবনগাঁথা

স্থানীয় অনেকেই জানালেন, সাধারণ ব্যবসায়ীদের মতোই মিজান কাজ করছে। গ্রাহকদের সঙ্গে টাকা লেনদেনে কোনো ঝামেলার ঘটনা কখনই দেখা যায়নি।

দোকান ঘর মালিক চাঁন মিয়া বলেন, ব্যবসা করার জন্য বাজারে আমার একটা দোকানঘর তাকে দিয়েছি। ভাড়া নেওয়া হয়না। সে যতদিন বেঁচে থাকবে ততো দিন তার কাছে ঘরভাড়া বাবদ কোনো টাকা নেবো না।

মিজানের বাবা মোনতাজ আলী বলেন, সে জন্ম থেকেই অন্ধ। চিকিৎসার জন্য তাকে উলিপুর ,রংপুর ও দিনাজপুর চক্ষু হাসপাতালে নিয়ে গেছি। চিকিৎসকরা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর চোখের অপারেশন করতে চেয়েছিল। কিন্তু অর্থ সংকটের কারণে সম্ভব হয়নি। মেম্বার ও চেয়ারম্যানের কাছে কয়েকবার গিয়েছিলাম। তারা ছেলেটাকে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে কোনো সাহায্য করেনি। বর্তমানে সে টাকা উপার্জন করে পরিবারকে সহযোগিতা করছে।

বন্দবেড় ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান কবীর হোসেন জানান, এ বিষয় আমি জানিনা। তবে খোঁজ নিয়ে পরিষদ থেকে যতটুকু সাহায্য সহযোগিতা করার দরকার তা করবো।

উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাহমুদা আকতার স্মৃতি বলেন, অন্ধ মিজানুরের বিষয় নিয়ে আমার কাছে কেউ আসেনি। সরেজমিনে গিয়ে সত্যতা পেলে অবশ্যই তাকে সার্বিক সহযোগিতা করা হবে।

উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. আরিফুল ইসলাম বলেন, ইতিমধ্যে তাকে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড করে দেওয়া হয়েছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button